• বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাত

    অক্টোবরে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ কমেছে ১৩ কোম্পানির

    নজরুল ইসলাম | ২২ নভেম্বর ২০২১ | ১১:১৩ পূর্বাহ্ণ

    অক্টোবরে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ কমেছে ১৩ কোম্পানির
    apps

    পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতের ২৩টি কোম্পানির মধ্যে গত সেপ্টেম্বর মাসের তুলনায় অক্টোবর মাসে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ কমেছে ১৩টি কোম্পানির। এগুলো হলো-অ্যাসোসিয়েটেড অক্সিজেন, সিভিও পেট্রোকেমিক্যাল, ডেসকো, ডরিন পাওয়ার, এনার্জিপ্যাক পাওয়ার, জিবিবি পাওয়ার, ইন্ট্রাকো রিফুয়েলিং, যমুনা অয়েল, খুলনা পাওয়ার, মেঘনা পেট্রোলিয়াম, পাওয়ার গ্রীড, শাহজিবাজার পাওয়ার এবং সামিট পাওয়ার। বিনিয়োগ বেড়েছে ৫টির এবং বিনিয়োগ তথ্য হালনাগাদ করা হয়নি ৫টি কোম্পানির।

    গত সেপ্টেম্বর মাসের তুলনায় অক্টোবর মাসে যেসব কোম্পানির প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ বেড়েছে এগুলো হলো-ইস্টার্ন লুব্রিকেন্টস, লুব- রেফ (বাংলাদেশ), পদ্মা অয়েল, তিতাস গ্যাস এবং ইউনাইটেড পাওয়ার।

    Progoti-Insurance-AAA.jpg

    গত সেপ্টেম্বর মাসের তুলনায় অক্টোবর মাসে বিনিয়োগ তথ্য হালনাগাদ করেনি বারাকা পাওয়ার, বিডি ওয়েল্ডিং ইলেকট্রোড, রাবাকা পতেঙ্গা পাওয়ার, লিন্ডে বিডি, এমজেএল বাংলাদেশ।

    এ ব্যাপারে বিশিষ্ট অর্থনীতিবিদ অধ্যাপক আবু আহমেদ বলেন, পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাতের যেসব কোম্পানির প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ কমলেও সাধারণ বিনিয়োগকারীদের উপর কোনো নেতিবাচক প্রভাব পড়বে না। কারণ পুঁজিবাজার লাভ-লোকসানের জায়গা। এখানে যে লাভ পাবে সেই তার শেয়ার বিক্রি করে দিবে। শেয়ার নিয়মিত বেচাকেনা হলে বিনিয়োগ কিছুটা কমবে এটাই স্বাভাবিক।


    তিনি বলেন, লাভ হলে অন্য সব বিনিয়োগকারীরা যেমন শেয়ার বিক্রি করে দেয় ঠিক তেমনি সাধারণ বিনিয়োগকারীরাও তাদের শেয়ার বিক্রি করে দিতে পারবে। এখানে চিন্তার কোনো কারণ নেই। তবে শেয়ার বিক্রির করার আগে অবশ্যই একটু চিন্তা ভাবনা করা উচিত। কারণ কোনো কোনো প্রতিষ্ঠানের শেয়ার দর ভবিষ্যতে বাড়তেও পারে।

    তিনি আরও বলেন, যেসব প্রতিষ্ঠান এখনো তাদের বিনিয়োগ তথ্য হালনাগাদ করেনি এক্ষেত্রে সাধারণ বিনিয়োগকারীরা কিছুটা ক্ষতিগ্রস্ত হতে পারে। সঠিক তথ্য না থাকলে বিনিয়োগ বাড়বে না রবং কমে যাবে। তাই বিনিয়োগ তথ্য হালনাগাদ করা জরুরি।

    প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ হ্রাস পাওয়া কোম্পানিগুলো ধারাবাহিকভাবে দেয়া হলো-
    অ্যাসোসিয়েটেড অক্সিজেন : কোম্পানিটিতে সেপ্টেম্বর মাসে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ ছিল ২৪.৪১ শতাংশ, যা অক্টোবরে ০.১৩ শতাংশ কমে ২৪.২৮ শতাংশে দাঁড়ায়। উল্লেখিত সময়ে সাধারণ বিনিয়োগ ৪৪.৮৮ শতাংশ থেকে অক্টোবরে ০.১৩ শতাংশ বেড়ে দাঁড়ায় ৪৫.০১ শতাংশে।

    সিভিও পেট্রোকেমিক্যাল : সেপ্টেম্বর মাসে কোম্পানিটিতে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ ছিল ১৯.৬৩ শতাংশ, যা অক্টোবরে ২.৪৩ শতাংশ কমে ১৭.২০ শতাংশে দাঁড়ায়। একই সময়ে বিদেশি বিনিয়োগ ০.৩৬ শতাংশ থেকে অক্টোবরে ০.০১ শতাংশ কমে দাঁড়ায় ০.৩৫ শতাংশে। উল্লেখিত সময়ে সাধারণ বিনিয়োগ ৩৪.৭০ শতাংশ থেকে অক্টোবরে ২.৪৪ শতাংশ বেড়ে দাঁড়ায় ৩৭.১৪ শতাংশে।

    ডেসকো : কোম্পানিটিতে সেপ্টেম্বর মাসে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ ছিল ২৩.৭৬ শতাংশ, যা অক্টোবরে ০.০১ শতাংশ কমে ২৩.৭৫ শতাংশে দাঁড়ায়। উল্লেখিত সময়ে সাধারণ বিনিয়োগ ৮.৫২ শতাংশ থেকে অক্টোবরে ০.০১ শতাংশ বেড়ে দাঁড়ায় ৮.৫৩ শতাংশে।

    ডরিন পাওয়ার : কোম্পানিটিতে সেপ্টেম্বর মাসে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ ছিল ১৯.৫৪ শতাংশ, যা অক্টোবরে ১.২৮ শতাংশ কমে ১৮.২৬ শতাংশে দাঁড়ায়। একই সময়ে সাধারণ বিনিয়োগ ১৩.৮৫ শতাংশ থেকে অক্টোবরে ১.২৮ শতাংশ বেড়ে দাঁড়ায় ১৫.১৩ শতাংশে।

    এনার্জিপ্যাক পাওয়ার : কোম্পানিটিতে সেপ্টেম্বর মাসে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ ছিল ১৭.৪০ শতাংশ, যা অক্টোবরে ০.৩২ শতাংশ কমে ১৭.০৮ শতাংশে দাঁড়ায়। একই সময়ে সাধারণ বিনিয়োগ ২৮.৪৭ শতাংশ থেকে অক্টোবরে ০.৩২ শতাংশ বেড়ে দাঁড়ায় ২৮.৭৯ শতাংশে।

    জিবিবি পাওয়ার : কোম্পানিটিতে সেপ্টেম্বর মাসে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ ছিল ১৯.০৮ শতাংশ, যা অক্টোবরে ১.৩২ শতাংশ হ্রাস পেয়ে ১৭.৭৬ শতাংশে দাঁড়ায়। একই সময়ে সাধারণ বিনিয়োগ ৪৮.৯১ শতাংশ থেকে অক্টোবরে ১.৩২ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়ে দাঁড়ায় ৫০.২৩ শতাংশে।

    ইন্ট্রাকো রিফুয়েলিং : কোম্পানিটিতে সেপ্টেম্বর মাসে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ ছিল ১৯.৮১ শতাংশ, যা অক্টোবরে ০.৯৪ শতাংশ কমে ১৮.৮৭ শতাংশে দাঁড়ায়। উল্লেখিত সময়ে সাধারণ বিনিয়োগ ৪৯.৫৩ শতাংশ থেকে অক্টোবরে ০.৯৪ শতাংশ বেড়ে দাঁড়ায় ৫০.৪৭ শতাংশে।

    যমুনা অয়েল : সেপ্টেম্বর মাসে কোম্পানিটিতে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ ছিল ২৭.৪৯ শতাংশ, যা অক্টোবরে ০.০১ শতাংশ হ্রাস পেয়ে ২৭.৪৮ শতাংশে দাঁড়ায়। একই সময়ে বিদেশি বিনিয়োগ ০.৪৭ শতাংশ থেকে অক্টোবরে ০.০২ শতাংশ হ্রাস পেয়ে দাঁড়ায় ০.৪৫ শতাংশে। উল্লেখিত সময়ে সাধারণ বিনিয়োগ ৯.০৬ শতাংশ থেকে অক্টোবরে ০.০৩ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়ে দাঁড়ায় ৯.০৯ শতাংশে।

    খুলনা পাওয়ার : কোম্পানিটিতে সেপ্টেম্বর মাসে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ ছিল ৯.৫৯ শতাংশ, যা অক্টোবরে ০.২৩ শতাংশ কমে ৯.৩৬ শতাংশে দাঁড়ায়। উল্লেখিত সময়ে সাধারণ বিনিয়োগ ২০.২৪ শতাংশ থেকে অক্টোবরে ০.২৩ শতাংশ বেড়ে দাঁড়ায় ২০.৪৭ শতাংশে।

    মেঘনা পেট্রোলিয়াম : কোম্পানিটিতে সেপ্টেম্বর মাসে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ ছিল ৩২.০৬ শতাংশ, যা অক্টোবরে ০.১১ শতাংশ কমে ৩১.৯৫ শতাংশে দাঁড়ায়। একই সময়ে সাধারণ বিনিয়োগ ৯.০৮ শতাংশ থেকে অক্টোবরে ০.১১ শতাংশ বেড়ে দাঁড়ায় ৯.১৯ শতাংশে।

    পাওয়ার গ্রীড : সেপ্টেম্বর মাসে কোম্পানিটিতে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ ছিল ১৮.০৬ শতাংশ, যা অক্টোবরে ৩.৪৬ শতাংশ হ্রাস পেয়ে ১৪.৯০ শতাংশে দাঁড়ায়। একই সময়ে সাধারণ বিনিয়োগ ৬.৫৮ শতাংশ থেকে অক্টোবরে ৩.৪৬ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়ে দাঁড়ায় ১০.০৪ শতাংশে।

    শাহজিবাজার পাওয়ার : কোম্পানিটিতে সেপ্টেম্বর মাসে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ ছিল ১৬.৮১ শতাংশ, যা অক্টোবরে ১.২০ শতাংশ কমে ১৫.৬১ শতাংশে দাঁড়ায়। উল্লেখিত সময়ে সাধারণ বিনিয়োগ ২২.৯০ শতাংশ থেকে অক্টোবরে ১.২০ শতাংশ বেড়ে দাঁড়ায় ২৪.১০ শতাংশে।

    সামিট পাওয়ার : সেপ্টেম্বর মাসে কোম্পানিটিতে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ ছিল ১৮.৫৫ শতাংশ, যা অক্টোবরে ০.৪৯ শতাংশ হ্রাস পেয়ে ১৮.০৬ শতাংশে দাঁড়ায়। একই সময়ে সাধারণ বিনিয়োগ ১৪.৫৯ শতাংশ থেকে অক্টোবরে ০.৪৯ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়ে দাঁড়ায় ১৫.০৮ শতাংশে।

    প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ বৃদ্ধি পাওয়া কোম্পানিগুলো হচ্ছে –

    ইস্টার্ন লুব্রিকেন্টস : কোম্পানিটিতে সেপ্টেম্বর মাসে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ ছিল ১০.৩২ শতাংশ, যা অক্টোবরে ০.১৬ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়ে ১০.৪৮ শতাংশে দাঁড়ায়। একই সময়ে সাধারণ বিনিয়োগ ২৩.৬৪ শতাংশ থেকে অক্টোবরে ০.১৬ শতাংশ হ্রাস পেয়ে দাঁড়ায় ২৩.৪৮ শতাংশে।

    লুব-রেফ (বাংলাদেশ) : সেপ্টেম্বর মাসে কোম্পানিটিতে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ ছিল ২২.৬৯ শতাংশ, যা অক্টোবরে ০.৬৩ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়ে ২৩.৩২ শতাংশে দাঁড়ায়। একই সময়ে বিদেশি বিনিয়োগ ০.০৩ শতাংশ থেকে অক্টোবরে ০.০৩ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়ে দাঁড়ায় ০.০৬ শতাংশে। উল্লেখিত সময়ে সাধারণ বিনিয়োগ ৪১.৫৮ শতাংশ থেকে অক্টোবরে ০.৬৬ শতাংশ হ্রাস পেয়ে দাঁড়ায় ৪০.৯২ শতাংশে।

    পদ্মা অয়েল : কোম্পানিটিতে সেপ্টেম্বর মাসে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ ছিল ৩০.৩৯ শতাংশ, যা অক্টোবরে ০.৭৬ শতাংশ বেড়ে ৩১.১৫ শতাংশে দাঁড়ায়। একই সময়ে বিদেশি বিনিয়োগ ০.৯৭ শতাংশ থেকে অক্টোবরে ০.১৮ শতাংশ কমে দাঁড়ায় ০.৭৯ শতাংশে। উল্লেখিত সময়ে সাধারণ বিনিয়োগ ১৬.২৩ শতাংশ থেকে অক্টোবরে ০.৫৮ শতাংশ কমে দাঁড়ায় ১৫.৬৫ শতাংশে।

    তিতাস গ্যাস : কোম্পানিটিতে সেপ্টেম্বর মাসে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ ছিল ১৫.১৩ শতাংশ, যা অক্টোবরে ০.০১ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়ে ১৫.১৪ শতাংশে দাঁড়ায়। একই সময়ে সাধারণ বিনিয়োগ ৯.৩৩ শতাংশ থেকে অক্টোবরে ০.০১ শতাংশ হ্রাস পেয়ে দাঁড়ায় ৯.৩২ শতাংশে।

    ইউনাইটেড পাওয়ার : কোম্পানিটিতে সেপ্টেম্বর মাসে প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগ ছিল ৭.১০ শতাংশ, যা অক্টোবরে ০.০৭ শতাংশ বৃদ্ধি পেয়ে ৭.১৭ শতাংশে দাঁড়ায়। উল্লেখিত সময়ে সাধারণ বিনিয়োগ ২.৮৭ শতাংশ থেকে অক্টোবরে ০.০৭ শতাংশ হ্রাস পেয়ে দাঁড়ায় ২.৮০ শতাংশে।

    Facebook Comments Box

    বাংলাদেশ সময়: ১১:১৩ পূর্বাহ্ণ | সোমবার, ২২ নভেম্বর ২০২১

    bankbimaarthonity.com |

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    Archive Calendar

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০
    ১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
    ১৮১৯২০২১২২২৩২৪
    ২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১
  • ফেসবুকে ব্যাংক বীমা অর্থনীতি