সোমবার ২৪ জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১০ আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

অপ্রদর্শিত অর্থ শেয়ারবাজারে বিনিয়োগের সুযোগের দাবি ডিবিএ’র

নিজস্ব প্রতিবেদক   |   মঙ্গলবার, ২৮ এপ্রিল ২০২০   |   প্রিন্ট   |   389 বার পঠিত

অপ্রদর্শিত অর্থ শেয়ারবাজারে বিনিয়োগের সুযোগের দাবি ডিবিএ’র

মহামারি করোনা ভইরাসে অন্য খাতের মতো শেয়ারবাজারেও নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। এতে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে সব শ্রেণীর বিনিয়োগকারী। এ ক্ষতি কাটিয়ে উঠতে অপ্রদর্শিত অর্থ শেয়ারবাজারে বিনিয়োগের সুযোগের দাবি জানিয়েছে ডিএসই ব্রোকার্স অ্যাসোসিয়েশন অব বাংলাদেশ (ডিবিএ)।

মঙ্গলবার (২৮ এপ্রিল) অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামালের কাছে চিঠি দিয়ে এ দাবি জানিয়েছে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের (ডিএসই) সদস্যদের নিয়ে গঠিত এ সংগঠনটি।

ডিবিএর সভাপতি শরীফ আনোয়ার হোসেনের সই করা চিঠিতে, পুঁজিবাজারে তারল্য প্রবাহ বাড়াতে অপ্রদর্শিত আয় বিনিয়োগের সুযোগের দাবি জানানো হয়েছে।

অপ্রদার্শিত অর্থ ১:১ ভিত্তিতে বন্ড ও সেকেন্ডারি মার্কেটে বিনিয়োগ করা হবে বলে চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে। বন্ডে বিনিয়োগ করা অপ্রদর্শিত অর্থ তিন বছরের জন্য ব্লক থাকবে এবং বন্ড এক্সচেঞ্জের মাধ্যমে লেনদেন যোগ্য হবে বলেও চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

চিঠিতে বলা হয়েছে, দীর্ঘদিন ধরে বিরাজমান মন্দার কারণে শেয়াবাজারে মধ্যস্থতাকারী প্রতিষ্ঠানগুলো আর্থিকভাবে দুর্বল হয়ে পড়েছে। ব্রোকারেজ হাউজসহ শেয়ার বাজারের অন্যান্য অংশীজনরা ব্যবসা পরিচালনা করতে প্রায় ব্যর্থ। এছাড়া কোভিড-১৯ এর ফলে দেশের অন্যান্য সব ব্যবসা-বাণিজ্যের পাশাপাশি শেয়ারবাজারেও এর বিরূপ প্রভাব পড়েছে।

এসব কথা উল্লেখ করে চিঠিতে অপ্রদর্শিত অর্থ বিনিয়োগের সুযোগের পাশাপাশি করোনার ক্ষতি কাটিয়ে চিঠিতে আরও পাঁচটি দাবি জানানো হয়েছে।

১. ব্রোকারেজ প্রতিষ্ঠানের কার্যক্রম পরিচালনায় আর্থিক সহায়তা প্রদান
এক্ষেত্রে ব্রোকারদের অফিস পরিচালন ব্যয়ভার (অফিস ভাড়া, কর্মকর্তা-কর্মচারীর বেতন, বিদ্যুৎ বিল ইত্যাদি) মিটিয়ে সব কার্যক্রম সচল রাখতে আর্থিক সহায়তা প্রয়োজন। এক্ষেত্রে চারটি উপায়ে আর্থিক সহায়তার কথা বলা হয়েছে।

* প্রদত্ত অর্থ সহায়তা কমপক্ষে এক বছর (১২ মাস) এর জন্য প্রদান করা।

* ব্রোকারদের নিজ প্রতিষ্ঠানের বার্ষিক অডিট রিপোর্ট মোতাবেক প্রদেয় অর্থের পরিমাণ বরাদ্দ করা।

*উক্ত অর্থ সহায়তা কোমল ঋণ (soft Loan) হিসেবে ৩ শতাংশ সুদে মোট ২৪টি সমান কিস্তিতে পরিশোধ করা হবে।

* উক্ত কিস্তির অর্থ ব্রোকারগণ ২০২১ সালের জানুয়ারি থেকে মাসিক ভিত্তিতে একটানা পরিশোধ করবে।

২. ব্রোকারদের অফিস কার্যক্রম সচল রাখতে, প্রাতিষ্ঠানিক অস্তিত্ব টিকিয়ে রেখে বিনিয়োগকারীদের মাঝে উন্নত বিনিয়োগ সেবা ও সুবিধা দিয়ে বিনিয়োগে আগ্রহী করতে শেয়ার লেনদেনের ওপর ব্রোকারদের দেয়া অগ্রিম আয়কর ০.০৫ শতাংশ থেকে কমিয়ে ০.০১৫ শতাংশ করার প্রস্তাব করা হয়েছে।

৩. মার্জিন সুবিধাভোগী বিনিয়োগকারীদের জন্য পুন:বিনিয়োগের ব্যবস্থা করা, মার্জিন ঋণের আওতাধীন বিদ্যমান বিনিয়োগকারীদের পুনরায় লেনদেনে ফিরিয়ে এনে তাদের ক্ষতি পুষিয়ে নিতে ফোর্স সেল থেকে বিনিয়োগকারীকে সুরক্ষাসহ বাজারে লেনদেনের প্রবাহ বাড়াতে তিনটি বিষয় বিবেচনায় পুন:অর্থের দাবি জানানো হয়েছে।

* এ আর্থিক সহায়তায় কোমল ঋণ (soft Loan) হিসেবে ৩ শতাংশ সুদে প্রদানযোগ্য হবে।

* উক্ত অর্থ শুধুমাত্র বিদ্যমান মার্জিন ঋণ হিসেবধারীদের অনুকূলে পুন:বিনিয়োগের জন্যে ব্যবহৃত হবে।

*উক্ত অর্থ তিন বছর মেয়াদকালীন সময়ের জন্য প্রদান করা হবে।

৪. মার্জিন অ্যাকাউন্টে লোনের বিপরীতে আরোপিত সুদ এক বছরের জন্য স্থগিতের দাবি জানানো হয়েছে চিঠিতে। এতে বিনিয়োগকারী তার ক্ষতি পুষিয়ে নেয়ার সুযোগ পাবে এবং লেনদেনে অংশগ্রহণ করে বাজারকে সক্রিয় করে তুলবে বলে চিঠিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

৫. ব্রোকার কর্তৃক প্রদেয় সিডিবিএল ফি ও চার্জ থেকে পূর্ণ অব্যাহতি দেয়।

Facebook Comments Box
(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});

Posted ৯:৫১ অপরাহ্ণ | মঙ্গলবার, ২৮ এপ্রিল ২০২০

bankbimaarthonity.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  
প্রধান সম্পাদক: মোহাম্মাদ মুনীরুজ্জামান
নিউজরুম:

মোবাইল: ০১৭১৫-০৭৬৫৯০, ০১৮৪২-০১২১৫১

ফোন: ০২-৮৩০০৭৭৩-৫, ই-মেইল: bankbima1@gmail.com

সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: পিএইচপি টাওয়ার, ১০৭/২, কাকরাইল, ঢাকা-১০০০।