• অ-তালিকাভুক্ত কোম্পানির লেনদেন হবে এটিবিতে

    নিজস্ব প্রতিবেদক | ০৩ নভেম্বর ২০২২ | ৭:০০ অপরাহ্ণ

    অ-তালিকাভুক্ত কোম্পানির লেনদেন হবে এটিবিতে
    apps

    ব্যবসায় মূলধন সংগ্রহ ও শেয়ারের মালিকানা পরিবর্তন সহজ করতে ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জে (ডিএসই) চালু হচ্ছে বিকল্প লেনদেন ব্যবস্থা বা অলটারনেটিভ ট্রেডিং বোর্ড (এটিবি)। এ প্লাটফর্মে লেনদেন হবে ডেবট সিকিউরিটিজ, ওপেন এন্ড মিউচুয়াল ফান্ড, অল্টারনেটিভে ইনভেস্টমেন্ট ফান্ড এবং পুঁজিবাজারে অতালিকাভুক্ত কোম্পানিগুলো। ডিএসই সূত্রে বিষয়টি জানা গেছে।

    সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এটিবি মার্কেট চালু হলে কোম্পানিগুলোর মূলধন সংগ্রহ সহজ হয়ে যাবে।

    Progoti-Insurance-AAA.jpg

    মিডওয়ে সিকিউটিজ লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আশিকুর রহমান বলেন, পুঁজিবাজারের মূল উদ্দেশ্য কোম্পানিগুলো যেন মূলধন সংগ্রহ করতে পারে। এটিবি মার্কেট চালু হলে এ কাজটা অনেক সহজ হবে এবং এক্ষেত্রে জটিলতা কমবে।

    সম্প্রতি পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশন (বিএসইসি) ‘অল্টারনেটিভ ট্রেডিং বোর্ড (এটিবি) রেগুলেশন ২০২২’ অনুমোদন করেছে। শিগগিরই এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপন জারি হবে বলে বিএসইসি সূত্রে জানা গেছে।


    প্লাটফর্মটি চালু হলে পুঁজিবাজারের বাইরে থাকা যেকোনো কোম্পানি এটিবিতে সরাসরি তালিকাভুক্ত হয়ে শেয়ার লেনদেন করতে পারবে। এ ক্ষেত্রে কোম্পানিটিকে অবশ্যই প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি থেকে পাবলিক লিমিটেড কোম্পানিতে রূপান্তরিত হতে হবে এবং ডিম্যাট শেয়ার (ইলেকট্রনিক শেয়ার) থাকতে হবে। পাশাপাশি গত তিন অর্থবছরের নিরীক্ষীত আর্থিক প্রতিবেদন থাকতে হবে।

    এক্ষেত্রে এটিবি রেগুলেশন অনুযায়ী কোম্পানিগুলোকে তিন বছরের কম সময়ের নিরীক্ষীত আর্থিক প্রতিবেদনও বিবেচনায় নেয়া হবে।

    এটিবি মার্কেটে শেয়ার দর নির্ধারনের ক্ষেত্রে কোম্পানিগুলোকে দুটি ভাগে ভাগ করা হয়েছে। প্রথমটি হলো- কমপক্ষে তিন বছর ব্যবসা পরিচালনা করা কোম্পানি। দ্বিতিয়টি হলো- তিন বছরের কম সময় ব্যবসা পরিচালনা করা কোম্পানি।

    অল্টারনেটিভ ট্রেডিং বোর্ড রেগুলেশন ২০২২-এ কমপক্ষে তিন বছর ব্যবসা পরিচালনা করা কোম্পানির শেয়ার দর নির্ধারণের ক্ষেত্রে দুটি পদ্ধতির কথা বলা হয়েছে। পদ্ধতিগুলো হলো- নেট এসেট মেথড এবং ইয়েল্ড মেথড।

    এছাড়াও এতে তিন বছরের কম সময় ধরে ব্যবসায় পরিচালনা করা কোম্পানিগুলোর শেয়ার দর নির্ধারণের ক্ষেত্রে ভিন্ন পদ্ধতির কথা বলা হয়েছে। এক্ষেত্রে কোম্পানির অভিহিত মূল্য এবং নেট এ্যাসেট ভ্যালুর মধ্যে যেটি কম সেটাই কোম্পানিটের ফেয়ার ভ্যালু হিসেবে গণ্য হবে।

    এটিবি মার্কেটে লেনদেনকৃত কোম্পনিগুলোর প্রথম দুই দিনের লেনদেনে ৪ শতংশ সার্কিট ব্রেকার থাকবে। লেনদেন শুরুর তৃতীয় দিন সেটেলমেন্টের জন্য লেনদেন বন্ধ থাকবে। লেনদেনের চতুর্থ দিন থেকে কোম্পানিগুলোর সার্কিট ব্রেকার হবে ৫ শতাংশ।

    এটিবি মার্কেটে লেনদেন করা কোম্পানিগুলোর শেয়ার কেনার ক্ষেত্রে কোন মার্জিন লোন পাওয়া যাবে না।

    এটিবি মার্কেটে তালিকাভু্ক্তির জন্য কিছু শর্ত দেয়া হবে। সেগুলো হলো- ক. মার্কেটে তালিকাভুক্তর অনুমোদন পাওয়া কোম্পানিগুলোর ইস্যুয়ার কোম্পানিগুলোকে স্টক ব্রোকারদেরকে শেয়ার বিক্রি করার তিন কার্যদিবস আগে জানাতে হবে। খ. এটিবি মার্কেটে প্রাইমারি শেয়ার হোল্ডাররা প্রথম দুই দিন তাদের শেয়ার বিক্রির অফার করতে পারবেন। গ. কোম্পানিগুলোর সর্বনিম্ন এবং সর্বোচ্চ লট নির্ধারিত করবে ইস্যুয়ার কোম্পানিগুলো।

    ঘ. এ প্লাটফর্মে তালিকাভুক্তির অনুমোদন পাওয়া কোম্পানিগুলোকে শেয়ার লেনদেন শুরু করার ৩০ কার্যদিবসের মধ্যে ১০ শতাংশ শেয়ার এ মার্কেটে বিক্রি করতে হবে। ঙ. এ মার্কেটে মাত্র ১০ হাজার লিস্টিং ফি দিয়ে কোম্পানিগুলো তালিকাভুক্ত হতে পারবে। চ. এটিবি মার্কেটে কোন কোম্পানির মালিকপক্ষ কোম্পানির ৪৯ শতাংশের বেশি শেয়ার ছাড়তে পারবে না। এ মার্কেটের কোম্পানিগুলোর স্পন্সর ডিরেক্টরদের হাতে সবসময় ৫১ শতাংশ শেয়ার সংরক্ষণ করতে হবে।

    এটিবি বোর্ডে থাকা একজন কর্মকর্তা বলেন, এটিবি মার্কেট নিয়ে একটি ভুল ধারণা হচ্ছে যে এ প্লাটফর্মে বিলুপ্ত ওটিসি মার্কেটের মৃতপ্রায় কোম্পানিগুলোকে পুর্নবাসন করা হবে। আসলে এটা ঠিক নয়। এ মার্কেট মূলত পুঁজিবাজারের বাইরে থাকা বিপুল পরিমাণ কোম্পানির শেয়ার নিয়ে কাজ করবে।

    ওই কর্মকর্তা আরও বলেন, বিলুপ্ত ওটিসি মার্কেটের বেশিরভাগ কোম্পানিগুলোর এটিবি মার্কেটে লেনদেনের জন্য যে যোগ্যতা থাকা প্রয়োজন তা নেই।

    এটিবি রেগুলেশন ২০২২ এ বলা হয়েছে, এ মার্কেটে কোন বিনিয়োগকারী শেয়ার কেনাবেচা করে মুনাফা করলেও তিন মাস আগে সে মুনাফা তুলতে পারবেন না। এক্ষেত্রে তিন মাসের মধ্যে কোন বিনিয়োগকারী মুনাফা করলে এক্সচেঞ্জকে জানাতে হবে। এ ছাড়া তিন মাসের মধ্যে মুনাফা তুলতে চাইলে ওই টাকা ইনভেস্টর প্রটেকশন ফান্ডে জমা দিয়ে দিতে হবে।

    বিলুপ্ত ওটিসি মার্কেটের ১৮টি কোম্পানি এটিবি মার্কেটে এটিবি রেগুলেশন ২০২২ এ থাকা শর্তবলী মানা সাপেক্ষে এ মার্কেটে লেনদেন করতে পারবে।

    কোম্পানিগুলো হলো- বাংলা প্রসেস ইন্ডাস্ট্রিজ, ড্যান্ডি ডাইং, ডায়নামিক টেক্সটাইল, মেটালেক্স করপোরেশন, মিতা টেক্সটাইল, মডার্ন সিমেন্ট, মডার্ন ইন্ডাস্ট্রিজ, মোনা ফুড প্রোডাক্টস, পারফিউমস কেমিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিজ, প্রেট্রো সিনথেটিক্স প্রোডাক্টস, ফর্মাকো ইন্টারন্যাশনাল, কাশেম সিল্ক মিলস, কাশেম টেক্সটাইলস মিলস, রাসপিট ইনকর্পোরেশন বিডি, রোজ হ্যাভেন বলপেন, সালেহ কার্পেট মিলস, শ্রীপুর টেক্সটাইল মিলস এবং ইউনাইটেড এয়ারওয়েজ।

    এদিকে ২০০৯ সালে দেশের উভয় পুঁজিবাজারে ওটিসি মার্কেট চালু করা হয়। উৎপাদন না থাকা, নিয়মিত বার্ষিক সাধারণ সভা (এজিএম) না করা, কাগুজে শেয়ার ডিমেট না করা, নিয়ম অনুযায়ী আর্থিক প্রতিবেদন জমা না দেওয়া, লভ্যাংশ প্রদান না করা এবং সিকিউরিটিজ আইন যথাযথভাবে পালন না করা কোম্পানিগুলোকে মূল মার্কেট থেকে ওটিসিতে শাস্তি স্বরূপ স্থানান্তর করা হয়েছিলো।

    পুঁজিবাজার নিয়ন্ত্রক সংস্থা বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) নির্বাহী পরিচালক ও মূখপাত্র মোহাম্মদ রেজাউল করিম বলেন, এটিবি মার্কেটে সব ধরনের কোম্পানি বিনিয়োগকারী বিনিয়োগ করতে পারবেন।

    এর আগে গত বছরের ১৬ সেপ্টেম্বর ওটিসি মার্কেটের কার্যক্রম অকার্যকর করে বিএসইসি।

    Facebook Comments Box

    বাংলাদেশ সময়: ৭:০০ অপরাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, ০৩ নভেম্বর ২০২২

    bankbimaarthonity.com |

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    রডের দাম বাড়ছে

    ১৩ জানুয়ারি ২০১৯

    Archive Calendar

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫১৬
    ১৭১৮১৯২০২১২২২৩
    ২৪২৫২৬২৭২৮২৯৩০
    ৩১  
  • ফেসবুকে ব্যাংক বীমা অর্থনীতি