• শিরোনাম

    জাতীয় সংসদের ১ জন পূর্ণ মন্ত্রী ও ৮ জন সাংসদ বীমা সেক্টরের সাথে জড়িত

    একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বীমা কোম্পানির মালিক ও পরিচালকদের জয়জয়কার

    ব্যাংক বীমা অর্থনীতি ডট কম | ২৩ জানুয়ারি ২০১৯ | ৯:১৯ অপরাহ্ণ

    একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বীমা কোম্পানির মালিক ও পরিচালকদের জয়জয়কার

    একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ক্ষমতাসীন দল বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ থেকে বিজয়ী হয়েছেন বীমা কোম্পানির ৭ জন মালিক ও ১ জন মুখ্য নির্বাহী। এছাড়া বিকল্প ধারার একজন প্রার্থীও বিজয়ী হয়েছেন এই নির্বাচনে। এর মধ্যে ৪ জন বীমা কোম্পানির চেয়ারম্যান, ৩ জন পরিচালক, ১ জন মালিক (শেয়ার হোল্ডার) এবং ১ জন মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা রয়েছেন।

    একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বীমা কোম্পানির মালিক ও পরিচালকদের মধ্যে একজন পূর্ণ মন্ত্রী ও আট জন সাংসদ বীমা সেক্টরের সাথে সরাসরি জড়িত। তাঁরা হলেনঃ সানলাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড এর অন্যতম মালিক (শেয়ার হোল্ডার) ও বর্তমান স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক স্বপন, ন্যাশনাল লাইফ ইন্স্যুরেন্সের চেয়ারম্যান মোর্শেদ আলম, চার্টার্ড লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেডের চেয়ারম্যান উপাধ্যক্ষ মো. আব্দুস শহীদ, এশিয়া ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড এর চেয়ারম্যান ইউসুফ আব্দুল্লাহ হারুন, রূপালী লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড এর চেয়ারম্যান মাহফুজুর রহমান মিতা, রিপাবলিক ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড এর পরিচালক সাবের হোসেন চৌধুরী, পাইওনিয়ার ইন্স্যুরেন্স লিমিডেট এর পরিচালক এ কে এম রহমতুল্লাহ, অগ্রনী ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির পরিচালক এইচ এম ইব্রাহিম এবং সন্ধানী লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড এর মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা আহসানুল ইসলাম টিটু।

    একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের ফলাফল অনুসারে, নোয়াখালী-২ আসনে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীক নিয়ে বিজয়ী হয়েছেন বেসরকারি লাইফ বীমা কোম্পানি ন্যাশনাল লাইফ ইন্স্যুরেন্সের চেয়ারম্যান মোর্শেদ আলম। তিনি ১ লাখ ৭৭ হাজার ৩৯১টি ভোট পেয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির জয়নাল আবেদীন ফারুক ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ২৬ হাজার ১৬৯ ভোট।

    মৌলভীবাজার-৪ আসনে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচনে বিজয়ী হয়েছেন চার্টার্ড লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেডের চেয়ারম্যান উপাধ্যক্ষ মো. আব্দুস শহীদ। ১৫২টি কেন্দ্রের বেসরকারি ফলাফলে তিনি ২ লাখ ১১ হাজার ৬১৩ ভোট পেয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী ঐক্যফ্রন্টের মুজিবুর রহমান মুজিব ধানের শীষে ভোট পেয়েছেন ৯৩ হাজার ২৯৫টি।

    কুমিল্লা-৩ আসনে আওয়ামী লীগের পক্ষে নির্বাচন করে বিজয়ী হয়েছেন বেসরকারি নন-লাইফ বীমা কোম্পানি এশিয়া ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড এর চেয়ারম্যান ইউসুফ আব্দুল্লাহ হারুন। তিনি নৌকা প্রতীকে ২ লাখ ৭৩ হাজার ১৮৩ ভোট পেয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বীবিএনপির প্রার্থী কে এম মজিবুল হক পেয়েছেন ১২ হাজার ৩৫৮ ভোট।

    চট্টগ্রাম-৩ আসনে নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করেছেন বেসরকারি লাইফ বীমা প্রতিষ্ঠান রূপালী লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড এর চেয়ারম্যান মাহফুজুর রহমান মিতা। তিনি ১ লাখ ৬২ হাজার ৩৫৬ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বীবিএনপির মোস্তফা কামাল পাশা ধানের শীষে পেয়েছেন ৩ হাজার ১২২ ভোট।

    ঢাকা-৯ আসন থেকে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করে বিজয়ী হয়েছেন রিপাবলিক ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড এর পরিচালক সাবের হোসেন চৌধুরী। তিনি দুই লাখ ২৪ হাজার ২৩০ ভোট পেয়েছে। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বীআফরোজা আব্বাস ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৫৯ হাজার ১৬৫ ভোট।

    ঢাকা-১১ আসন থেকে নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করে বিজীয় হয়েছেন বেসরকারি নন-লাইফ বীমা কোম্পানি পাইওনিয়ার ইন্স্যুরেন্স লিমিডেট এর পরিচালক এ কে এম রহমতুল্লাহ। তিনি ১ লাখ ৮৬ হাজার ৬৮১ ভোট পেয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বীশামীম আরা বেগম ধানের শীষ প্রতীকে ৫৪ হাজার ৭২১ ভোট পেয়েছেন।

    নোয়াখালী-১ আসনে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীকে নির্বাচন করে বিজয়ী হয়েছেন নন-লাইফ বীমা প্রতিষ্ঠান অগ্রনী ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির পরিচালক এইচ এম ইব্রাহিম। নির্বাচনে তিনি ২ লাখ ৩৮ হাজার ৯৭০ ভোট পেয়েছেন। আর তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বীবিএনপির মাহবুব উদ্দিন খোকন পেয়েছেন ১৪ হাজার ৮৬২ ভোট।

    টাঙ্গাইল-৬ আসনে আওয়ামী লীগের নৌকা প্রতীক নিয়ে নির্বাচন করে বিজয়ী হয়েছেন বেসরকারি লাইফ বীমা কোম্পানি সন্ধানী লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড এর মুখ্য নির্বাহী কর্মকর্তা আহসানুল ইসলাম টিটু। তিনি ২ লাখ ৮৫ হাজার ৩০৫ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বীবিএনপির প্রার্থী গৌতম চক্রবর্তী পেয়েছেন ৪০ হাজার ৩২৪ ভোট।

    লক্ষ্মীপুর-৪ আসনে ১ লাখ ৮৩ হাজার ৯০৬ ভোট পেয়ে জয়ী হয়েছেন বিকল্পধারার মহাসচিব ও বেসরকারি লাইফ বীমা কোম্পানি সানফ্লাওয়ার লাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড এর চেয়ারম্যান মেজর (অব.) এম এ মান্নান। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বীঐক্যফ্রন্টের অন্যতম শীর্ষ নেতা জেএসডি সভাপতি আ স ম আবদুর রব ধানের শীষ প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ৪০ হাজার ৯৭৩ ভোট।

    এ ছাড়াও মানিকগঞ্জ-৩ আসনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী জাহিদ মালেক স্বপন (নৌকা) ২ লাখ ২৬ হাজার ৯৬ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বীঐক্যফ্রন্ট মনোনীত গণফোরামের প্রার্থী মফিজুল ইসলাম খান কামাল (উদীয়মান সূর্য) পেয়েছেন ৩০ হাজার ৩৮১। উল্লেখ্য, জাহিদ মালেক স্বপন দশম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিজয়ী হওয়ার পর স্বাস্থ্য প্রতিমন্ত্রী হিসাবে দায়িত্বপ্রাপ্ত হওয়ার পরে বেসরকারী লাইফ বীমা কোম্পানি সানলাইফ ইন্স্যুরেন্স লিমিটেড এর চেয়ারম্যান পদ থেকে পদত্যাগ করেছেন। তবে তিনি উক্ত প্রতিষ্ঠানের অন্যতম মালিক (শেয়ার হোল্ডার)। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে তিনি স্বাস্থ্যমন্ত্রী হিসেবে শপথ গ্রহণ করেছেন।

    বীমা সেক্টরের সাথে সংশ্লিষ্টরা মনে করেন, বাংলাদেশের অর্থনীতিতে সম্ভাবনাময় এ সেক্টরের সাথে জড়িতরা জাতীয় সংসদ সদস্য হওয়ায় এ সেক্টর লাভবান হবে। আশা করা যায় তাদের বীমা বিষয়ে সংসদে কথা বলার অনেক সুযোগ থাকবে, যা এ সেক্টরকে অনেক সমৃদ্ধ করবে।

    Comments

    comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    নভেম্বর ২০১৯
    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
    « অক্টোবর    
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫
    ১৬১৭১৮১৯২০২১২২
    ২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
    ৩০  
  • ফেসবুকে ব্যাংক বীমা অর্থনীতি