শুক্রবার ২৪ মে, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১০ জ্যৈষ্ঠ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

করোনা সংকটঃ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ২৫ লক্ষ বিমা পেশাজীবী অসহায় পাশে কেউ নেই

গাজিপুর প্রতিনিধি:   |   রবিবার, ২৬ এপ্রিল ২০২০   |   প্রিন্ট   |   373 বার পঠিত

করোনা সংকটঃ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ২৫ লক্ষ বিমা পেশাজীবী অসহায় পাশে কেউ নেই

বীমা কর্মীর অর্থনিরাপত্তা চেয়ে প্রধানমন্ত্রীর নিকট আইডিএবি’র খোলা চিঠিৃ ২৫ লক্ষ বিমা পেশাজীবীদের অর্থ নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নিকট পাঁচশত কোটি টাকা অর্থ বরাদ্ধ চায় আইডিএবি। বিমা বান্ধব মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা আপনার প্রতি কৃতজ্ঞতা ও ধন্যবাদ জ্ঞাপন করছি। আপনার শাসন আমলে বিমা খাতে প্রচুর উন্নয়ন হয়েছে যা এখনো চলমান। আপনার দিক নির্দেশনায় আমরা বিমা মেলা পেয়েছি বিমা দিবস পেয়েছি বেশকিছু নতুন বিমা কোম্পানীও পেয়েছি। আপনার আমলেই ২০১০ সালে বিমা আইন হয়েছে। আমরা বিশ্বাস করি আপনার নির্দেশনায় বিমা পেশাজীবীদের চাকরি নিরাপত্তা নীতিমালা ও আইন বাস্তবায়ন হবে যা বিমা পেশাজীবীদের উজ্জল ভবিষ্যত বিনির্মানে জরুরী। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনি বিমা পরিবারের সন্তান। আমরা সকলেই অবগত আছি জাতীর পিতা হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ বাঙালি বাংলাদেশ রাষ্ট্রের মহান স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তৎকালীন সময়ে বিমা পেশার সঙ্গে জরিত ছিলেন। সেই হিসাবে আপনি বিমা পরিবারের সন্তান। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনি ২৫ লক্ষ বিমা পেশাজীবীদের অভিভাবক। বিমা পেশাজীবীদের যাবতীত সমস্য ও সম্ভবনা বিমা পেশাজীবী”রা আপনার নিকট উপস্থাপন করবে এটাই স্বাভাবিক। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী – আজ করোনা সংকটে জাতী দিশেহারা। আপনার সঠিক নেতৃত্বে জাতী আশার প্রাণ ফিরে পেয়েছে। আপনার বলিষ্ঠ সিন্ধান্তে জাতী আজ উৎজীবিত। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী করোনা সংকট মোকাবেলা ও অর্থ নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ২৫ লক্ষ বিমা পেশাজীবী আজ আপনার সিন্ধান্তের অপেক্ষায় আছে। বর্তমান সময়ে বিমা পেশাজীবী”রা দেশ জাতী ও নিজেদের নিরাপত্তার স্বার্থে ঘরে বন্দি। এই সংকটময় সময়ে মাঠ থেকে যেমন প্রিমিয়াম সংগ্রহ করা সম্ভব নয় তেমনি মাঠে যেয়ে নতুন বিমা বিক্রিও সম্ভব নয়। এই কারনেই কমিশন ভুক্ত লক্ষ লক্ষ বিমা পেশাজীবী আজ চরম অর্থ নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। এই বিমা পেশাজীবীদের সমাজিক অবস্থান থাকায় তারা এই চরম দুর্দিনে কাহার নিকট সহযোগিতাও চাইতে পারছেন না। নিরবে অর্থ কষ্টে তাদের দিন অতিবাহিত হচ্ছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এই সংকটময় সময় আরো দীর্ঘ হলে ২৫ লক্ষ বিমা পেশাজীবী বেকার হয়ে যাবে। এদের পরিবার সহ প্রায় এককোটি পঞ্চাশ লক্ষ মানুষ অর্থ নিরাপত্তা হীনতার কারনে করুন ও সংকটময় পরিবেশে দিন কাটাবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এই সংকটময় পরিবেশ কাটিয়ে উঠতে বিমা পেশাজীবীদের প্রায় ছয়মাস সময় লেগে যাবে। এই সময়ে বিমা পেশাজীবীদের অর্থ নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে। আর এই অর্থ নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে আপনার নিকট জরুরী ভিত্তিতে বিমা পেশাজীবী”রা অর্থ সহায়তা চায়। করোনা সংকট মোকাবেলা ও অর্থ নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী”র নিকট পাচশত কোটি টাকা অর্থ বরাদ্ধ চায় বিমা পেশাজীবীদের সংগঠন আইডিএবি। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনি বিমা পেশাজীবীদের অভিভাবক। এই সংকটময় সময়ে বিমা পেশাজীবীদের পাশে দাড়ান। বর্তমান সময়ে ২৫ লক্ষ বিমা পেশাজীবী”রা চরম আতংক ও অর্থ নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। বিমা পেশাজীবী”রা বর্তমান ও আগামী নিয়ে চিন্তিত। বিমা কোম্পানীগুলো এই সংকটময় সময়ে বিমা পেশাজীবীদের পাশে নেই। লক্ষ লক্ষ বিমা পেশাজীবীদের পাওনা বেতন ও কমিশন বন্ধ রেখেছে।এবং বিভিন্ন শর্ত আরোপ করে বিমা পেশাজীবীদের নিরাপত্তা ও মানবাধিকার হরন করছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দয়া করে বিমা পেশাজীবীদের জন্য এই সংকটময় সময়ে বিশেষ অর্থ সহায়তা প্রদান করবেন। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী ; আবারও আপনাকে স্বরণ করিয়ে দিতে চাই এই সংকট কাটিয়ে উঠতে ২৫ লক্ষ বিমা পেশাজীবীদের ” ছয়মাস ” সময় লেগে যাবে। রাষ্ট্রের পক্ষ থেকে অর্থ নিরাপত্তা নিশ্চিত না হলে লক্ষ লক্ষ বিমা পেশাজীবী”রা অতি মানবতার জীবন অতিবাহিত করবে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দয়াকরে বিমা পেশাজীবীদের অর্থ নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সহায়তা প্রদান করবেন। এই বিমা পেশাজীবী”রাই রাষ্ট্র বিনির্মানে হাজার হাজার কোটি টাকা রাজস্ব প্রদান করে থাকেন। এম জিএম সজল প্রতিষ্ঠাতা চেয়ারম্যান আইডিএবি -ও DAB বিমা পেশাজীবীদের সংগঠন

Facebook Comments Box
(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});

Posted ১১:২৩ পূর্বাহ্ণ | রবিবার, ২৬ এপ্রিল ২০২০

bankbimaarthonity.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০
১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
১৮১৯২০২১২২২৩২৪
২৫২৬২৭২৮২৯৩০৩১
প্রধান সম্পাদক: মোহাম্মাদ মুনীরুজ্জামান
নিউজরুম:

মোবাইল: ০১৭১৫-০৭৬৫৯০, ০১৮৪২-০১২১৫১

ফোন: ০২-৮৩০০৭৭৩-৫, ই-মেইল: bankbima1@gmail.com

সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: পিএইচপি টাওয়ার, ১০৭/২, কাকরাইল, ঢাকা-১০০০।