• শিরোনাম

    চলে গেলেন অভিনেতা তাপস পাল

    বিবিএনিউজ.নেট | ১৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০ | ৩:২১ অপরাহ্ণ

    চলে গেলেন অভিনেতা তাপস পাল

    কলকাতার বর্ষীয়ান অভিনেতা তাপস পাল (৬১) আর নেই। মঙ্গলবার ভোরে মুম্বাইয়ের একটি বেসরকারি হাসপাতালে তার জীবনাবসান হয়েছে। দীর্ঘদিন ধরে স্নায়ু এবং রক্তচাপের সমস্যায় ভুগছিলেন তিনি।

    কিছুদিন আগে কলকাতা থেকে মুম্বাই গিয়েছিলেন তাপস পাল। সোমবার মুম্বাই বিমানবন্দরে অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। এরপর তাকে জুহুর একটি হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে সেখানেই শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করেন তাপস।

    এর আগে গত ১ থেকে ৬ ফেব্রুয়ারির হাসপাতালে ভেন্টিলেশনে রাখা হয়েছিল তাকে। তখন কিছুটা সুস্থ হওয়ার পর বাসায় ফিরেছিলেন তিনি। কিন্তু এবার আর শেষ রক্ষা হলো না।

    ১৯৫৮ সালের ২৯ সেপ্টেম্বর হুগলির চন্দননগরে জন্ম তাপস পালের। ছোটবেলা থেকেই অভিনয়ের প্রতি ঝোঁক ছিল তার। ১৯৮০ সালে তরুণ মজুমদার পরিচালিত ‘দাদার কীর্তি’ সিনেমার মধ্য দিয়ে বড় পর্দায় অভিষেক ঘটে এই অভিনেতার। এতে মহুয়া রায় চৌধুরী, সন্ধ্যা রায়, দেবশ্রী রায়, অনুপ কুমারের মতো শিল্পীদের সঙ্গে পর্দা ভাগ করার সুযোগ হয় তার। তখন তাপসের বয়স ছিল মাত্র ২২ বছর।

    প্রথম সিনেমাতেই বাজিমাৎ করেন তিনি। সিনেমাটির ব্যবসায়িকসাফল্য তাকে রাতারাতি সুপারস্টার বানিয়ে দেয়। এরপর ১৯৮১ সালে বিজয় বসুর ‘সাহেব’ সিনেমায় তাপস পালের সঙ্গে অভিনয় করেন উত্পল দত্ত, মহুয়া রায়চৌধুরী, মাধবী মুখোপাধ্যায়ের মতো শিল্পীরা। সহজ-সরল চরিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে বাংলা সিনেমা জগতে নিজের জায়গা করে নেন তিনি।

    দেবশ্রী রায়ের সঙ্গে জুটি বেঁধে তাপসের দ্বিতীয় সিনেমা ‘ভালোবাসা ভালোবাসা’ সুপার হিট হয়। সে সময়ে দেবশ্রী-তাপস দর্শকদের কাছে বাংলা সিনেমার সবচেয়ে চাহিদা সম্পন্ন জুটিতে পরিণত হয়েছিল।

    ‘গুরুদক্ষিণা’ সিনেমার জন্য তাকে আজীবন মনে রাখবে বাংলার দর্শকমহল। ওই ছবিতে কালী বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে তাপসের যুগলবন্দী রীতিমতো কাঁদিয়েছিল সবাইকে।

    ‘মায়া মমতা’, ‘সুরের ভুবনে’, ‘সমাপ্তি’, ‘চোখের আলো’, ‘অন্তরঙ্গ’র মত বহু বিখ্যাত বাংলা সিনেমায় অভিনয় করেছেন তাপস। ১৯৮১ সালে ‘সাহেব’র জন্য তিনি পান ফিল্মফেয়ার অ্যাওয়ার্ড। বলিউডের সিনেমাতেও কাজ করছেন তাপস পাল। ‘অবোধ’ ছবিতে মাধুরী দীক্ষিতের বিপরীতে দেখা যায় তাকে। এটি ছিল মাধুরীর অভিষেক সিনেমা।

    অভিনয়ের পাশাপাশি ২০০৯ সালে ভারতীয় সাধারণ নির্বাচনে তৃণমূল কংগ্রেস থেকে টিকিট নিয়ে নির্বাচিত হয়ে কৃষ্ণনগরে সংসদ সদস্য (এমপি) হন তিনি। তবে ২০১৬ সালের শেষের দিকে রোজ ভ্যালি নামে একটি চিট ফান্ডের সঙ্গে যুক্ত থাকার অভিযোগে পুলিশ তাকে গ্রেফতার করে।

    দীর্ঘ ১৩ মাস বন্দি থাকার পর ওড়িশার বিশেষ আদালত তাপসকে জামিন দেয়। বন্দি অবস্থাতে তাকে দীর্ঘদিন হাসপাতালে ভর্তি থাকতে হয়েছিল।

    তাপস পালের মেয়ে টলিউডের অভিনেত্রী সোহিনী পাল। তাকেও নিয়মিত পর্দায় দেখা যায়।

    তাপসের মৃত্যুতে টলিপাড়ার খ্যাতিমান তারকা ও নির্মাতারা শোক প্রকাশ করেছেন। পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়, অভিনেতা চিরঞ্জিত চক্রবর্তী, রঞ্জিত মল্লিক, অভিনেত্রী দেবশ্রী রায়, ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত, পরিচালক বুদ্ধদেব দাশগুপ্ত ও হরনাথ চক্রবর্তীসহ অনেকেই শোকবার্তা জানিয়েছেন।

    Facebook Comments

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    মিথিলার অবশেষে ভালোবেসে

    ০৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

    বসন্ত উৎসবে মিলেছে নগরবাসী

    ১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

    পপ সম্রাট আজম খানের জন্মদিন আজ

    ২৮ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০
    ১১১২১৩১৪১৫১৬১৭
    ১৮১৯২০২১২২২৩২৪
    ২৫২৬২৭২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে ব্যাংক বীমা অর্থনীতি