• পদ্মাসেতুর ১২শ’ মিটার দৃশ্যমান

    বিবিএনিউজ.নেট: | ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ | ২:২১ অপরাহ্ণ

    পদ্মাসেতুর ১২শ’ মিটার দৃশ্যমান
    apps

    পদ্মাসেতুর জাজিরা প্রান্তে ৩৫ ও ৩৬ নম্বর পিলারের ওপর ছয় স্প্যান (সুপার স্ট্রাকচার) বসানোর মাধ্যমে জাজিরা ও মাওয়া প্রান্ত মিলিয়ে দৃশ্যমান হলো ১২০০ মিটার।

    জাজিরা প্রান্তে ৬ষ্ঠ স্প্যান বসানোর ২৮ দিনের মাথায় বসলো এই সপ্তম স্প্যানটি। বাকি স্প্যান বসানোর সময়ের হিসেবে খুব কম সময়ে স্প্যানটি বসাতে পারায় আনন্দিত দেশি বিদেশি প্রকৌশলীরা।

    Progoti-Insurance-AAA.jpg

    বুধবার দুপুর পৌনে ১টার দিকে সেতুর ৩৫ ও ৩৬ নম্বর পিলারের ওপর জাজিরা প্রান্তে বসে সপ্তম স্প্যানটি। এর আগে সকাল ৮টা থেকে পিলারের ওপর স্প্যান বসানোর কার্যক্রম শুরু হয়। বর্তমানে মাওয়া প্রান্তে একটি অস্থায়ী স্প্যানসহ পুরো সেতুতে এখন ৮টি স্প্যান।

    জাজিরায় ৩৫, ৩৬, ৩৭, ৩৮, ৩৯, ৪০, ৪১ ও ৪২ পিলারে সাতটি স্প্যান ও মাওয়া ৪ ও ৫ নম্বর পিলারের উপর একটি অস্থায়ী স্প্যান।


    এর আগে মঙ্গলবার সকালে মাওয়া কনস্ট্রাকশন ইয়ার্ড থেকে রওনা দিয়ে স্প্যানটি বিকেলে জাজিরা প্রান্তে কাঙ্ক্ষিত পিলার এলাকায় এসে পৌঁছে। ধূসর রংয়ের স্প্যানের দৈর্ঘ্য ১৫০ মিটার আর ওজন তিন হাজার ১৪০ টন। তিন হাজার ৬০০ টন ধারণক্ষমতার ক্রেন ‘তিয়ান ই’ স্প্যানটি বহন করে আনে।

    নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক প্রকৌশলী জানান, সকাল থেকে এই স্প্যানটি বসানোর কাজ শুরু হয়। তবে ঘন কুয়াশার কারণে কাজে ধীর গতি দেখা দেয়। খুঁটিনাটি বিষয়গুলো এর আগে থেকেই বিশেষজ্ঞ প্যানেল দ্বারা পর্যবেক্ষণ করা হয়। ওয়েট টেস্ট, ট্রায়াল লোড টেস্ট, বেজ প্লেট, পাইল পজিশন, মেজারমেন্টসহ আনুষাঙ্গিক পরীক্ষা-নিরীক্ষা সফলভাবে শেষ হয়। মডিউল ৬ এর দ্বিতীয় স্প্যান বসানো হয়েছে।

    স্প্যান বহনকারী ক্রেনটিকে পিলারের ৩৫ ও ৩৬ নম্বর পিলারের পজিশন অনুযায়ী রাখা হয়। এরপর লিফটিং ক্রেনের সাহায্যে রাখা হয় পিলারের ওপর। স্প্যানটি পুরোপুরি স্থায়ীভাবে বসে যেতে সময় লাগবে আরো কয়েকদিন।

    উল্লেখ্য, মূল সেতু নির্মাণের জন্য কাজ করছে চীনের ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান চায়না মেজর ব্রিজ ইঞ্জিনিয়ারিং কোম্পানি (এমবিইসি) ও নদীশাসনের কাজ করছে চীনেরই আরেকটি প্রতিষ্ঠান সিনো হাইড্রো করপোরেশন। ২০১৭ সালের ৩০ সেপ্টেম্বর বসানো হয় প্রথম স্প্যান। এর প্রায় ৪ মাস পর ২০১৮ সালের ২৮ জানুয়ারি দ্বিতীয় স্প্যানটি বসে। এর দেড় মাস পর ১১ মার্চ জাজিরা প্রান্তে ধূসর রঙের তৃতীয় স্প্যান বসানো হয়। এর ২ মাস পর ১৩ মে বসে চতুর্থ স্প্যান। এর এক মাস ১৬ দিনের মাথায় পঞ্চম স্প্যানটি বসে ২৯ জুন। এরপর ৬ মাস ২৫ দিনের মাথায় বসে ষষ্ঠ স্প্যানটি। আর মাওয়া প্রান্তে ৪ ও ৫ নম্বর পিলারের ওপর একটি স্প্যান রাখা আছে।

    ৬ দশমিক ১৫ কিলোমিটার দীর্ঘ এ সেতুতে ৪২টি পিলারের ওপর বসবে ৪১টি স্প্যান। স্প্যান বসানো হয়েছে ৮টি, বাকি আছে ৩৩টি। পদ্মা বহুমুখী সেতুর মূল আকৃতি হবে দোতলা। কংক্রিট ও স্টিল দিয়ে নির্মিত হচ্ছে এ সেতুর কাঠামো।

    Facebook Comments Box

    বাংলাদেশ সময়: ২:২১ অপরাহ্ণ | বুধবার, ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৯

    bankbimaarthonity.com |

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    Archive Calendar

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩১৪১৫
    ১৬১৭১৮১৯২০২১২২
    ২৩২৪২৫২৬২৭২৮২৯
    ৩০৩১  
  • ফেসবুকে ব্যাংক বীমা অর্থনীতি