• শিরোনাম

    প্রথম প্রান্তিকে আয় বেড়েছে ২৪ ব্যাংকের

    নিজস্ব প্রতিবেদক | ২৭ জুলাই ২০২০ | ২:৩৭ পূর্বাহ্ণ

    প্রথম প্রান্তিকে আয় বেড়েছে ২৪ ব্যাংকের

    শেয়ারবাজারে তালিকাভুক্ত ৩০টি ব্যাংকের মধ্যে ২৪টি ব্যাংকের প্রথম প্রান্তিকে (জানুয়ারি’২০-মার্চ’২০) আয় বেড়েছে। এছাড়া ৫টির আয় কমলেও লোকসানে রয়েছে এছাড়া আইসিবি ইসলামী ব্যাংক। সম্প্রতি ডিএসইর ওয়েবসাইটে কোম্পানিগুলোর প্রকাশিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী এ তথ্য জানা গেছে। নিম্নে ব্যাংকগুলোর প্রথম প্রান্তিকের আর্থিক অবস্থা তুলে ধরা হলো:

    এবি ব্যাংক লিমিটেড : গত ৩১ মার্চ, ২০২০ তারিখে সমাপ্ত চলতি হিসাববছরের প্রথম প্রান্তিকের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী সহযোগী প্রতিষ্ঠানের আয়সহ এ ব্যাংকের সমন্বিত শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৯ পয়সা। আগের বছর সমন্বিত ইপিএস ছিল ১০ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় আয় কমেছে এক পয়সা।
    আলোচিত প্রান্তিকে এককভাবে এবি ব্যাংকের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৬ পয়সা। আগের বছর সলো ইপিএস ছিল ২ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় আয় বেড়েছে ৪ পয়সা।

    Progoti-Insurance-AAA.jpg

    আল আরাফাহ্ ইসলামী ব্যাংক : চলতি হিসাববছরের প্রথম প্রান্তিকের (জানুয়ারি’২০-মার্চ’২০) অনিরিক্ষীত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী ব্যাংকটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৫১ পয়সা। অর্থাৎ আগের বছর একই সময়ে তা ছিল ৪৪ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় আয় বেড়েছে ৭ পয়সা।

    ব্যাংক এশিয়া : চলতি হিসাববছরের প্রথম প্রান্তিকের (জানুয়ারি’২০-মার্চ’২০) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী এককভাবে শুধু ব্যাংক এশিয়ার শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ১৮ পয়সা, যা গত বছরের একই সময়ে ৫৯ পয়সা ছিল। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় আয় বেড়েছে ৫৯ পয়সা। সহযোগী প্রতিষ্ঠানের আয়সহ ব্যাংকটির শেয়ারপ্রতি আয় (্ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ১৬ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ছিল ৫৯ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় আয় বেড়েছে ৫৭ পয়সা।


    ব্র্যাক ব্যাংক : চলতি হিসাববছরের প্রথম প্রান্তিকের (জানুয়ারি’২০-মার্চ’২০) অনিরিক্ষীত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী ব্যাংকটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৭১ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে তা ছিল এক টাকা ৪ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় আয় কমেছে ৩৩ পয়সা।

    সিটি ব্যাংক লিমিটেড : চলতি হিসাববছরের প্রথম প্রান্তিকের (জানুয়ারি’২০-মার্চ’২০) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী সমন্বিতভাবে অর্থাৎ সহযোগী প্রতিষ্ঠানের আয়সহ সিটি ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৭৫ পয়সা। গত অর্থবছরের প্রথম প্রান্তিকেও সমন্বিত ইপিএস ছিল ৭৫ পয়সা। প্রথম প্রান্তিকে এককভাবে ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৬৫ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে সলো ইপিএস ছিল ৫৯ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় আয় বেড়েছে ৬ পয়সা।

    ঢাকা ব্যাংক লিমিটেড : চলতি হিসাববছরের প্রথম প্রান্তিকে (জানুয়ারি’২০-মার্চ’২০) সমন্বিতভাবে অর্থাৎ সহযোগী প্রতিষ্ঠানের আয়সহ এ ব্যাংকের সমন্বিত শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৬৮ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে সমন্বিত ইপিএস ছিল ৫০ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় আয় বেড়েছে ১৮ পয়সা।
    অন্যদিকে প্রথম প্রান্তিকে এককভাবে ব্যাংকটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৬৭ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে সলো ইপিএস ছিল ৪৯ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় আয় বেড়েছে ১৮ পয়সা।

    ডাচ-বাংলা ব্যাংক লিমিটেড : চলতি হিসাববছরের প্রথম প্রান্তিকের (জানুয়ারি’২০-মার্চ’২০) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী এ ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ১ টাকা ৫১ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ছিল ৯৫ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) বেড়েছে ৫৬ পয়সা।

    ইস্টার্ন ব্যাংক লিমিটেডের (ইবিএল) : চলতি হিসাববছরের প্রথম প্রান্তিকের (জানুয়ারি’২০-মার্চ’২০) অনিরিক্ষীত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী ব্যাংকটির সমন্বিত অর্থাৎ সহযোগী প্রতিষ্ঠানের আয়সহ শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ৩ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে তা ছিল ১ টাকা ৬ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় আয় কমেছে ৩ পয়সা। এককভাবে শুধু ইবিএলের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ৩ পয়সা, যা গত বছের একই সময়ে ছিল ৯৯ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় আয় বেড়েছে ৪ পয়সা।

    এক্সিম ব্যাংক : চলতি হিসাববছরের প্রথম প্রান্তিকে সহযোগী প্রতিষ্ঠানের আয়সহ ব্যাংকটির সমন্বিত শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪ পয়সা। গত বছরের বছর একই সময়ে তা ছিল ২৫ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় আয় কমেছে ২১ পয়সা।

    ফার্স্ট সিকিউরিটিজ ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড : চলতি হিসাববছরের প্রথম প্রান্তিকের (জানুয়ারি’২০-মার্চ’২০) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী এ ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় হয়েছে ৭২ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ছিল ৫৪ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) বেড়েছে ১৮ পয়সা।

    আইসিবি ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড : চলতি হিসাববছরের প্রথম প্রান্তিকের (জানুয়ারি’২০-মার্চ’২০) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী এ ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি লোকসান হয়েছে ৯ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ছিল ১৬ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় শেয়ারপ্রতি লোকসান কমেছে ৭ পয়সা।

    আইএফআইসি ব্যাংক লিমিটেড : ব্যাংকটির অনিরীক্ষিত প্রতিবেদন অনুসারে চলতি হিসাববছরের প্রথম প্রান্তিকে সহযোগী প্রতিষ্ঠানের আয়সহ সমন্বিত শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪৮ পয়সা। আগের বছর একই প্রান্তিকে সমন্বিত ইপিএস ৪৩ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) বেড়েছে ৫ পয়সা।
    আলোচিত প্রান্তিকে এককভাবে ব্যাংকটির শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪১ পয়সা। গত বছরের একই সময়ে ইপিএস হয়েছিল ৩৬ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) বেড়েছে ৫ পয়সা।

    ইসলামী ব্যাংক বাংলাদেশ লিমিটেড : চলতি হিসাববছরের প্রথম প্রান্তিকের (জানুয়ারি’২০-মার্চ’২০) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী সহযোগী প্রতিষ্ঠানের আয়সহ এ ব্যাংকের সমন্বিত শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪৩ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে সমন্বিত ইপিএস ছিল ৪০ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় আয় বেড়েছে ৩ পয়সা। আলোচিত প্রান্তিকে এককভাবে ইসলামী ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪২ পয়সা। আগের বছর সলো ইপিএস ছিল ৩৬ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় আয় বেড়েছে ৬ পয়সা।

    যমুনা ব্যাংক লিমিটেড : প্রথম প্রান্তিকের (জানুয়ারি’২০-মার্চ’২০) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী সমন্বিতভাবে অর্থাৎ সহযোগী প্রতিষ্ঠানের আয়সহ এ ব্যাংকের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ৪২ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে সমন্বিত ইপিএস ছিল ৭০ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় আয় বেড়েছে ৭২ পয়সা। প্রথম প্রান্তিকে এককভাবে ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ৪৫ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে সলো ইপিএস ছিল ৭১ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় আয় বেড়েছে ৭৪ পয়সা।

    মার্কেন্টাইল ব্যাংক লিমিটেড : এ কোম্পানি চলতি হিসাববছরের প্রথম প্রান্তিকের (জানুয়ারি’২০-মার্চ’২০) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে। প্রথম প্রান্তিকে মার্কেন্টাইল ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি কনস্যুলেটেড আয় হয়েছে ৬৪ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ছিল ৫০ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় আয় বেড়েছে ১৪ পয়সা।

    মিউচ্যুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক (এমটিবি) লিমিটেড : গত ৩১ মার্চ, ২০২০ তারিখে সমাপ্ত চলতি হিসাববছরের প্রথম প্রান্তিকের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী সহযোগী প্রতিষ্ঠানের আয়সহ ব্যাংকটির সমন্বিত শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৭৬ পয়সা। আগের বছর সমন্বিত ইপিএস ছিল ৬০ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় আয় বেড়েছে ১৬ পয়সা।

    ন্যাশনাল ব্যাংক লিমিটেড (এনবিএল) : চলতি হিসাববছরের প্রথম প্রান্তিকে (জানু’-মার্চ’২০) ব্যাংকটির শেয়ার প্রতি আয় বা ইপিএস হয়েছে ৩১ পয়সা। আগের বছর ইপিএস ছিল ১৫ পয়সা (রিস্টেটেড)। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় আয় বেড়েছে ১৬ পয়সা।

    এনসিসি ব্যাংক লিমিটেড : প্রথম প্রান্তিকে ব্যাংকটির সমন্বিত অর্থাৎ সহযোগী প্রতিষ্ঠানের আয়সহ শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৮৪ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে তা ছিল ৪০ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) বেড়েছে ৪৪ পয়সা। এককভাবে শুধু এনসিসি ব্যাংকের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৮৫ পয়সা, যা গত বছের একই সময়ে ছিল ৪০ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) বেড়েছে ৪৫ পয়সা।

    ওয়ান ব্যাংক লিমিটেড: প্রথম প্রান্তিক (জানু’-মার্চ’২০) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ০.৮৩ টাকা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস ছিল ০.২৩ টাকা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) বেড়েছে ৬০ পয়সা।

    প্রিমিয়ার ব্যাংক লিমিটেড : প্রথম প্রান্তিকে (জানুয়ারি-মার্চ’১৮) কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি সমন্বিত আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪৫ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস ছিল ৪২ পয়সা টাকা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) বেড়েছে ৩ পয়সা। এককভাবে কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি সমন্বিত আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪৪ পয়সাা। এর আগের বছর একই সময় যার পরিমাণ ছিল ৪০ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) বেড়েছে ৪ পয়সা।

    প্রাইম ব্যাংক লিমিটেড : প্রথম প্রান্তিকে ব্যাংকটির সমন্বিত অর্থাৎ সহযোগী প্রতিষ্ঠানের আয়সহ শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪২ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ছিল ৩৭ পয়সা। অর্থাৎ আগের বছরের তুলনায় শেয়ারপ্রতি আয় বেড়েছে ৫ পয়সা। এককভাবে শুধু প্রাইম ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৪৫ পয়সা, যা গত বছরের একই সময়ে ৩৮ পয়সা ছিল। অর্থাৎ আগের বছরের তুলনায় শেয়ারপ্রতি আয় বেড়েছে ৭ পয়সা।

    পূবালী ব্যাংক : প্রথম প্রান্তিক (জানু’-মার্চ’২০) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সমন্বিত আয় (ইপিএস) হয়েছে ৮৬ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস ছিল ৮২ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় আয় বেড়েছে ৪ পয়সা।

    রূপালী ব্যাংক লিমিটেড : প্রথম প্রান্তিকে (জানুয়ারি-মার্চ’১৮) কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি সমন্বিত আয় (ইপিএস) হয়েছে ২২ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস ছিল ২৩ পয়সা টাকা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) কমেছে এক পয়সা।

    শাহজালাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড : চলতি হিসাববছরের প্রথম প্রান্তিকের (জানুয়ারি’২০-মার্চ’২০) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী এ ব্যাংকের শেয়ারপ্রতি কনসুলেটেড আয় হয়েছে ৬৪ পয়সা। আগের বছর একই সময়ে ছিল ৫০ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) বেড়েছে ১৪ পয়সা।

    সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড : প্রথম প্রান্তিক (জানু’-মার্চ’২০) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সমন্বিত আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩৯ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস ছিল ২৯ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) বেড়েছে ১০ পয়সা।

    ট্রাস্ট ব্যাংক লিমিটেড : প্রথম প্রান্তিকে (জানু’-মার্চ’২০) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী ব্যাংকটি সমন্বিত শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) করেছে ৯৬ পয়সা। যা আগের বছর একই সময়ে ছিল ৬৯ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) বেড়েছে ২৭ পয়সা।

    সাউথইস্ট ব্যাংক লিমিটেড : গত ৩১ মার্চ, ২০২০ তারিখে সমাপ্ত চলতি হিসাববছরের প্রথম প্রান্তিকের অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী সহযোগী প্রতিষ্ঠানের আয়সহ ব্যাংকটির সমন্বিত শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৯৮ পয়সা। আগের বছর সমন্বিত ইপিএস ৪৩ পয়সা ছিল (রিস্টেটেড)। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় আয় বেড়েছে ৫৫ পয়সা। আলোচিত প্রান্তিকে এককভাবে এ ব্যাংকের শেয়ার প্রতি আয় (ইপিএস) হয়েছে ৯৮ পয়সা। আগের বছর একক ইপিএস ছিল ৪১ পয়সা (রিস্টেটেড)। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় আয় বেড়েছে ৫৭ পয়সা।

    স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক লিমিটেড : চলতি হিসাববছরের প্রথম প্রান্তিকের (জানুয়ারি-মার্চ’২০) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন প্রকাশ অনুযায়ী ব্যাংকটির সমন্বিত ইপিএস হয়েছে ৩৮ পয়সা। গত বছর একই প্রান্তিকে তা ছিল ১১ পয়সা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) বেড়েছে ২৭ পয়সা।
    ব্যাংকটির একক ইপিএসও হয়েছে ৩৮ পয়সা। এটিও আগের বছর ১১ পয়সা ছিল। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় শেয়ারপ্রতি আয় (ইপিএস) বেড়েছে ২৭ পয়সা।

    ইউনাইটেড কমার্শিয়াল ব্যাংক লিমিটেড : প্রথম প্রান্তিক (জানু’-মার্চ’২০) অনিরীক্ষিত আর্থিক প্রতিবেদন অনুযায়ী কোম্পানিটির শেয়ার প্রতি সমন্বিত আয় (ইপিএস) হয়েছে ৩৪ পয়সা। গত অর্থবছরের একই সময়ে ইপিএস ছিল ৩৮ পয়সা টাকা। অর্থাৎ গত বছরের একই সময়ের তুলনায় আয় কমেছে ৪ পয়সা।

    উত্তরা ব্যাংক লিমিটেড : প্রথম প্রান্তিকে (জানুয়ারি’২০-মার্চ’২০) কোম্পানিটির শেয়ারপ্রতি সমন্বিত আয় (ইপিএস) হয়েছে ১ টাকা ৬৫ পয়সা, যা আগের বছরের একই সময়ে ছিলো ৯২ পয়সা। অর্থাৎ আগের বছরের তুলনায় আয় বেড়েছে ৭৩ পয়সা।

     

    Facebook Comments

    বাংলাদেশ সময়: ২:৩৭ পূর্বাহ্ণ | সোমবার, ২৭ জুলাই ২০২০

    bankbimaarthonity.com |

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
    ১০১১১২১৩১৪
    ১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
    ২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
    ২৯৩০৩১  
  • ফেসবুকে ব্যাংক বীমা অর্থনীতি