শুক্রবার ২৩ ফেব্রুয়ারি, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ১০ ফাল্গুন, ১৪৩০ বঙ্গাব্দ

অ্যাকাউন্টিবিলিটি অ্যান্ড সাসটেনেবিলিটি: ইমপ্লিমেন্টেশন প্রগ্রেসেস শীর্ষক সম্মেলন

বর্তমান অর্থনীতির প্রেক্ষাপটে অ্যাকাউন্টবিলিটি ও সাসটেইনেবিলিটি বড় ভূমিকা রাখছে : প্রেসিডেন্টআইসিএবি

  |   শনিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২৩   |   প্রিন্ট   |   68 বার পঠিত

বর্তমান অর্থনীতির প্রেক্ষাপটে অ্যাকাউন্টবিলিটি ও সাসটেইনেবিলিটি বড় ভূমিকা রাখছে :  প্রেসিডেন্টআইসিএবি

দি ইনস্টিটিউট অব চাটার্ড অ্যাকাউন্টেন্টস অব বাংলাদেশ (আইসিএবি), ভিক্টোরিয়া ইউনিভার্সিটি অব ওয়েলিংটন, নিউজিল্যান্ড এবং ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জ লি. যৌথভাবে আয়োজিত “অ্যাকাউন্টিবিলিটি অ্যান্ড সাসটেনেবিলিটিঃ ইমপ্লিমেন্টেশন প্রগ্রেসেস” শীর্ষক সম্মেলন আইসিএবি অডিটরিয়ামে গত ৩০ নভেম্বর অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের মাননীয় প্রতিমন্ত্রী ড. শামসুল আলম, বিশেষ অতিথি ছিলেন অর্থমন্ত্রণালয়ের অর্থ বিভাগের সচিব ড. মো. খায়রুজ্জামান মজুমদার এবং সম্মানিত অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. হাফিজ মুহম্মদ হাসান বাবু।

অনুষ্ঠানের শুরুতেই সূচনা বক্তব্য রাখেন আইসিএবির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা সুভাশীষ বসু এবং স্বাগত বক্তব্য প্রদান করেন আইসিএবির প্রেসিডেন্ট মো. মনিরুজ্জামান এফসিএ। আইসিএবির প্রেসিডেন্ট সবাইকে স্বাগত জানিয়ে বলেন, আমাদের ব্যবসা ও অর্থনীতির বর্তমান প্রেক্ষাপট ও অবস্থায় অ্যাকাউন্টবিলিটি ও সাসটেইনেবিলিটি একটি বড় ভূমিকা রাখছে। জবাবদিহিতা এবং স্থায়িত্ব নিশ্চিতে আমাদের যে প্রতিশ্রুতি ছিল তার যে অগ্রগতি হয়েছে সে বিষয়ে তথ্য দিতে চাই। একটি জাতির জন্য আমাদের লক্ষ্য হচ্ছে অর্থনৈতিক, সামাজিক এবং পরিবেশগতভাবে উন্নতি লাভ করা। সেই সঙ্গে দেশের সব নাগরিকদের মধ্যে সুবিধাগুলো সমানভাবে ভাগের নিশ্চিত করা। আমরা যেভাবে অ্যাকান্টিবিলিটি এবং সাসটেইনেবিলিটিতে কাজ করে এতে সাম্প্রতিক সময়ে বিশ্ব একটি বড় পরিবর্তন দেখেছে। সরকার থেকে শুরু করে ব্যবসা-প্রতিষ্ঠান পর্যন্ত, আমাদের কার্যক্রম আজকের এবং ভবিষ্যত প্রজন্মের মঙ্গলকে অনেক প্রভাবিত করবে।
তিনি বলেন, অর্থনৈতিক স্থায়িত্ব বলতে একটি প্রতিষ্ঠান বা জাতির দীর্ঘমেয়াদে অর্থনৈতিক উন্নয়নের জন্য তৈরি করা অনুশীলনগুলোকে বোঝায় এবং এর কার্যক্রমের পরিবেশগত, সামাজিক এবং সাংস্কৃতিক দিকগুলোকে পরিচালনা করে। এতে অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি ঠিক রেখে পরিবেশ এবং মানুষের উপর প্রভাব বিস্তার করে মুনাফা তৈরিতে কাজ করে। প্রতিবেদনে স্থায়িত্বের তথ্য নিশ্চিতের মাধ্যমে ২০২৬ সালের মধ্যে বাংলাদেশকে উন্নয়নশীল অর্থনীতির দিকে উত্তরণে বিনিয়োগকারী, দাতা এবং স্টেকহোল্ডারদের আকৃষ্ট করবে। সেই সঙ্গে স্টেকহোল্ডার এবং বিশ্বব্যাংক, আইএমএফ, এডিবি ইত্যাদির মতো আন্তর্জাতিক সংস্থাগুলোর মধ্যে আস্থা তৈরি করবে ও দেশের ভাবমূর্তি সমুন্নত রাখবে।
পরে “অ্যাকাউন্টিবিলিটি অ্যান্ড সাসটেনেবিলিটিঃ ইমপ্লিমেন্টেশন প্রগ্রেসেস” শীর্ষক কনফারেন্স মুল প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন নিউজিল্যান্ড এর ওয়েলিংটন স্কুল অফ বিসনেস এন্ড গভর্নমেন্ট, ভিক্টোরিয়া ইউনিভার্সিটি অফ ওয়েলিংটন এর একাডেমিক প্রোগ্রাম লিডার ড. ইয়াংনকা মোজেস (উৎ. ণরহশধ গড়ংবং ঈঅ, ঈচঅ, অপধফবসরপ চৎড়মৎধসব খবধফবৎ, ডবষষরহমঃড়হ ঝপযড়ড়ষ ড়ভ ইঁংরহবংং ধহফ এড়াবৎহসবহঃ, ঠরপঃড়ৎরধ টহরাবৎংরঃু ড়ভ ডবষষরহমঃড়হ) ও ফড় প্রবন্ধে তিনি বলেন, সব অংশীজনদের স্বার্থ রক্ষা করে আর্থিক প্রতিবেদন তৈরির মাধ্যমে হিসাবের ক্ষেত্রে জবাবদিহিতা নিশ্চিত করা যায়। দেশ, সমাজ ও কোম্পানির উপর ইতিবাচক ও নেতিবাচক প্রভাবের বিষয়টি মাথায় রেখে প্রতিবেদন তৈরি করতে হবে। কোম্পানির ব্যবস্থাপকদের শুধু মুনাফা করলেই হবে না, একইসঙ্গে নতুন কর্মসংস্থান সৃষ্টি ও উপযুক্ত জীবনমান নিশ্চিত করার মাধ্যমে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে পদক্ষেপ নিতে হবে।

কনফারেন্সে সম্মানিত অতিথি ঢাকা স্টক এক্সচেঞ্জের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. হাফিজ মুহম্মদ হাসান বাবু বলেন, যে কোন উন্নয়ন দীর্ঘস্থায়ী না হলে সেটিকে প্রকৃত উন্নয়ন বলা যায় না। তাই টেকসই উন্নয়ন প্রতিটি ক্ষেত্রেই একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। জাতিসঙ্গের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) হল ১৭টি লক্ষ্যের একটি। যার লক্ষ্য হল ২০৩০ সালের মধ্যে দারিদ্রের অবসান, পৃথিবীকে রক্ষা করা এবং সবার জন্য সমৃদ্ধি নিশ্চিত করা। এটি বিশ্বব্যাপী স্বীকৃত যে, এসডিজি প্রণয়নে পেশাদার হিসাবরক্ষকদের একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রয়েছে। পেশাদার হিসাবরক্ষক ব্যবসায়ের এসডিজির প্রয়োজনীয়তা পূরণ করতে নৈতিক অনুশীলনকে উৎসাহিত করতে এবং এসডিজি-এর প্রভাব পর্যবেক্ষণ ও মূল্যায়ন করতে
সহায়তা করতে পারে।
ডিএসইর চেয়ারম্যান ড. হাসান বাবু আরো বলেন, অ্যাকাউন্টিবিলিটি ও সাসটেইনেবিলিটি শব্দ দুটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ। কোনো সংস্থার স্থায়ীত্ব নিশ্চিত করতে হলে এ দুটি বিষয় অবশ্যই নিশ্চিত করতে হবে। সেই সঙ্গে একটি প্রতিষ্ঠানে স্বচ্ছ পরিকল্পনা ও নিয়ন্ত্রণের জন্য অ্যাকান্টিবিলিটির গুরুত্ব অনেক। বর্তমানে সব সংস্থা উন্নয়নের জন্য সাসটেইনেবল রিপোর্ট নিশ্চিতের কাজ করছে। আর এর জন্য প্রযোজন পেশাদার ব্যাক্তির। যেখানে আইসিএবি একি উল্লেখযোগ্য অবদান রাখছে। প্রতিষ্ঠানের ব্যবসা ও উৎপাদন কিভাবে টেকসই হতে পারে সে বিষয়ে তাদের অভিজ্ঞ ব্যাক্তি কাজ করেন।
তিনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশে ডিজিটাল লক্ষ্য বাস্তবায়নের পর স্মার্ট বাংলাদেশ গঠনের লক্ষ্য হাতে নিয়েছে। এসডিজির যে ১৭ লক্ষ্য আছে তার অন্যতম উদ্দেশ্য হচ্ছে সাসটেইনেবল উন্নয়ন। এসডিজির আগে দেশে উন্নয়ন হলেও টেকসই উন্নয়ন হয়নি। আজ ডিএসই, আইসিএবি এবং ভিকটরি ইউনিভার্সিটি যে অনুষ্ঠান করছে তা খুবই সময়োপযোগী এবং এর মাধ্যমে শুধু টেকসই সমাজ নয়, সাথে দেশের জন্যও কাজে আসবে।
তিনি আরো বলেন, জাতিসংঘের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) অর্জনে বাংলাদেশ উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি করেছে। এখনও অনেক পথ পাড়ি দিতে হবে। দি ইনস্টিটিউট অফ চার্টার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্টস অফ বাংলাদেশ একটি জাতীয় পেশাদার অ্যাকাউন্টিং সংস্থা। যা

Facebook Comments Box
(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});

Posted ৮:৪০ অপরাহ্ণ | শনিবার, ০২ ডিসেম্বর ২০২৩

bankbimaarthonity.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

রডের দাম বাড়ছে
(11108 বার পঠিত)

এ বিভাগের আরও খবর

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
 
১০১১১২১৩১৪১৫১৬
১৭১৮১৯২০২১২২২৩
২৪২৫২৬২৭২৮২৯  
প্রধান সম্পাদক: মোহাম্মাদ মুনীরুজ্জামান
নিউজরুম:

মোবাইল: ০১৭১৫-০৭৬৫৯০, ০১৮৪২-০১২১৫১

ফোন: ০২-৮৩০০৭৭৩-৫, ই-মেইল: bankbima1@gmail.com

সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: পিএইচপি টাওয়ার, ১০৭/২, কাকরাইল, ঢাকা-১০০০।