রবিবার ২৩ জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৯ আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ডিভোর্সি নারী বালিশচাপায় হত্যা মামলার রায়

ভিকটিমের সন্তানকে ৪ লাখ টাকা দিয়ে আসামীর জামিন হাইকোর্টে

  |   বৃহস্পতিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৩   |   প্রিন্ট   |   79 বার পঠিত

ভিকটিমের সন্তানকে ৪ লাখ টাকা দিয়ে আসামীর জামিন হাইকোর্টে

রাজধানীর খিলগাঁওয়ে একটি ফ্ল্যাটে কথিত প্রেমিক রমজান ঢালীর বালিশচাপায় নিহত ডিভোর্সি নারী আমেনার নাবালক সন্তানের নামে ৪ লাখ টাকার সঞ্চয়পত্র কিনে দিতে আসামীকে নির্দেশ দিয়েছেন হাইকোর্ট। এই সঞ্চয়পত্র কিনে দেওয়ার শর্তে ওই আসামীর জামিন আবেদন মঞ্জুর করা হয়েছে। ভিকটিম /নিহত আমেনার একমাত্র সন্তানের বয়স বর্তমানে ১৬ বছর। এফডিআরের নমিনি রাষ্ট্রপক্ষের এক আইন কর্মকর্তা, সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল মোহাম্মদ মিজানুর রহমান।

আলোচিত হত্যা মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০২০ সালে স্বামীর সঙ্গে বিবাহ বিচ্ছেদের পর আমেনা রাজধানীর খিলগাঁওয়ে একটি ফ্ল্যাটে একমাত্র সন্তানকে (১৩) নিয়ে বসবাস করতেন। খিলগাঁওয়ের ওই ফ্ল্যাটে বসবাস করার সময়ে রমজান ঢালী নামে দুই সন্তানের জনকের সঙ্গে আমেনার প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এরপর ২০২০ সালের ২১ মার্চ দুজনের মধ্যে নানা বিষয়ে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে রমজান ঢালী আমেনার ফ্ল্যাটে দিয়ে তাকে বালিশচাপা দিয়ে শ্বাসরোধ করে তাকে হত্যার পর পালিয়ে যায়। এই হত্যা কান্ডের আড়াই মাস আগে আগের স্বামীর সঙ্গে আমেনার বিবাহ বিচ্ছেদ হয়।

এদিকে গত ৩০ মার্চ হাইকোর্টের বিচারপতি মো. বদরুজ্জামান ও বিচারপতি এস এম মাসুদ হোসেন দোলনের সমন্বয়ে গঠিত বেঞ্চের দেওয়া রায়ের পূর্ণাঙ্গ অনুলিপি গত বুধবার (১২ এপ্রিল) সুপ্রিম কোর্টের ওয়েবসাইটে প্রকাশ হয়েছে। আদালতে জামিন আবেদনের পক্ষে ছিলেন জ্যেষ্ঠ আইনজীবী মো. মোতাহার হোসেন সাজু। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল অপূর্ব কুমার ভট্টাচার্য ও সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল মো. মিজানুর রহমান।

হাইকোর্টের রায়ে বলা হয়েছে, ফৌজদারি কার্যবিধির ৩৩৯ সি (২) ধারায় বলা হয়েছে, একজন দায়রা জজ বা একজন অতিরিক্ত দায়রা জজ বা সহকারী দায়রা জজ যে তারিখে মামলাটি বিচারের জন্য গ্রহণ করবেন তার ৩৬০ দিনের মধ্যে মামলার বিচার শেষ করবেন। পেনাল কোডের ৩৩৯ সি (২) ধারায় আরও বলা হয়েছে, যদি নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে বিচার শেষ না করা যায়, তাহলে জামিন অযোগ্য অপরাধে অভিযুক্ত ব্যক্তিকে জামিনে মুক্তি দেওয়া যেতে পারে। তাই যেকোনো আসামিকে বিনাবিচারে অনির্দিষ্টকালের জন্য কারাগারে আটক রাখা যাবে না।

রায়ে আরও উল্লেখ করা হয়েছে, এ ক্ষেত্রে বিচারিক আদালত কর্তৃক মামলা প্রাপ্তির তারিখ থেকে ৩৬০ কার্যদিবস অতিবাহিত হয়েছে। অভিযুক্ত আবেদনকারী ৩ (তিন) বছরেরও বেশি সময় ধরে কারাগারে রয়েছেন এবং অনিবার্যভাবে মামলার বিচার কার্যক্রমের সমাপ্তি বিলম্বিত হতে চলেছে। অভিযুক্ত আসামির দীর্ঘ কারাবাস ও বিচারের সমাপ্তির অনিশ্চয়তা বিবেচনা করে, আমরা মনে করি যে অভিযুক্ত আসামির জামিন ফৌজদারি কার্যবিধির ৩৩৯ সি (৪) ধারা (সিআর. পি. সি. এর ধারা ৩৩৯সি (৪)) অনুযায়ী জামিনের সুবিধা পাওয়া উচিত।

রায়ে বলা হয়েছে, এছাড়া অভিযুক্ত আসামি রমজান ঢালী ভুক্তভোগীর নাবালক সন্তানের সুস্থতা ও ভরণপোষণের জন্য ৪ লাখ টাকা প্রদান করতে প্রস্তাব করেছেন। তিনি ওই ছেলের জন্য ইসলামী ব্যাংক লিমিটেড, সদরঘাট শাখায় গত ৯ মার্চ একটি পে অর্ডার ক্রয় করেন। পাশাপাশি এ বিষয়ে আসামি রমজান ঢালী আইনজীবীর মাধ্যমে অঙ্গীকার করেছেন যে, যদি বিচারের পর তিনি অভিযোগ থেকে খালাস পান, তবুও এই টাকা দাবি করবেন না। রায়ে আদালত বলেন, মামলার রেকর্ড অনুযায়ী বিবাহ বিচ্ছেদের পর থেকে নাবালক শিশুটি তার মায়ের সঙ্গে মৃত্যুর আগ পর্যন্ত ছিল। শিশুটির সুস্থতার কথা বিবেচনা করে আমরা অভিযুক্ত আসামির প্রস্তাব গ্রহণ করছি। মামলার বাস্তবতা ও পরিস্থিতি বিবেচনা করে আমরা অভিযুক্ত আসামিকে এই মামলার বিচার শেষ না হওয়া পর্যন্ত জামিনে দিতে চাই।

রায়ে আদালত ইসলামী ব্যাংকের সদরঘাট শাখায় ডিপোজিটকৃত ৪ লাখ টাকা নগদায়ন করে সোনালী ব্যাংক সুপ্রিম কোর্ট শাখায় ওই নাবালক শিশুর নামে ৩ বছরের জন্য একটি সঞ্চয়পত্র কেনার নির্দেশ দেন। সঞ্চয়পত্রটি তিন বছরে পরিপক্ক হওয়ার পর ওই শিশু লভ্যাংশসহ মোট টাকা গ্রহণ করবে বলে রায়ে আদালত উল্লেখ করেন।

রায়ে হাইকোর্ট সংশ্লিষ্ট কোর্টের সহকারী অ্যাটর্নি জেনারেল মিজানুর রহমানকে সোনালী ব্যাংক সুপ্রিম কোর্ট শাখায় সঞ্চয়পত্রটি পরিচালনার জন্য শিশুটির (লিগ্যাল) আইনগত অভিভাবক হিসেবে মনোনীত করে দিয়েছেন।

মামলার বিবরণে জানা যায়, ২০২০ সালে হত্যার দুদিন পর ২৩ মার্চ আমেনার ভাই মো. আইয়ুব হত্যার অভিযোগে খিলগাঁও থানায় এজাহার দায়ের করেন। একই দিন রমজান ঢালীকে গ্রেফতার করে পুলিশ। একই বছরের ২৪ মার্চ ঢাকা মহানগর অতিরিক্ত দায়রা জজ আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দেন রমজান ঢালী। এরপর ২০২১ সালের ২৮ জানুয়ারি পুলিশ তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল করে। ২০২২ সালের ১৩ জানুয়ারি আদালত রমজান ঢালীর বিরুদ্ধে চার্জ গঠন করেন। এ সময়ে একাধিক বার রমজান ঢালীর জামিন আবেদন নামঞ্জুর হয়।এরপর হাইকোর্টে জামিন চেয়ে আবেদন করেন রমজান ঢালী। আদালত শুনানি শেষে রুল জারি করেন। এরপর গত ৩০ মার্চ রুল যথাযথ ঘোষণা করে রায় দেন হাইকোর্ট। ওই রায়ের পূর্ণাঙ্গ অনুলিপি প্রকাশ পেয়েছে বুধবার। গত১২ এপ্রিল হাইকোর্টের সোনালী ব্যাংকের শাখায় এফডিআর করতে ওই ছেলেকে হাজির করে খিঁলগাও থানা পুলিশ। নমিনি করা হয় রাষ্ট্রের আইন কর্মকর্তা সহকারি অ্যাটর্নি জেনারেল মোহাম্মদ মিজানুর রহমানকে।

তিনি গণমাধ্যমকে বলেন, ওই নারীর সন্তান যাতে কেউ জোরপূর্বক জিম্মি করে টাকাটা নিতে না পারে সেজন্য কোর্টের নির্দেশে সেটা আমার অধীনে থাকবে। পরে টাকা তুলে তাকে দিয়ে দেওয়া হবে। জামিনের ফলে মূল মামলার বিচারে কোনো প্রভাব পড়বে না।

আসামী রমজান ঢালীর আইনজীবী মোতাহার হোসেন সাজু গণমাধ্যমকে বলেন, কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে তাকে মেরে ফেলেছে। সেজন্য কোর্ট একটু নমনীয় হলেও বাচ্চার ভবিষ্যতের কথা চিন্তা করে, বাচ্চাটা যেহেতু নাবালক, এ চিন্তা করে কোর্টের মানবিক দৃষ্টিভঙ্গি এখানে কাজ করেছে। #

Facebook Comments Box
(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});

Posted ৫:২৯ অপরাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৩

bankbimaarthonity.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  
প্রধান সম্পাদক: মোহাম্মাদ মুনীরুজ্জামান
নিউজরুম:

মোবাইল: ০১৭১৫-০৭৬৫৯০, ০১৮৪২-০১২১৫১

ফোন: ০২-৮৩০০৭৭৩-৫, ই-মেইল: bankbima1@gmail.com

সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: পিএইচপি টাওয়ার, ১০৭/২, কাকরাইল, ঢাকা-১০০০।