শুক্রবার ২১ জুন, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৭ আষাঢ়, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

ভ্যাট ফাঁকির মামলার কবলে ডেল্টা লাইফ

নিজস্ব প্রতিবেদক   |   শুক্রবার, ১২ ফেব্রুয়ারি ২০২১   |   প্রিন্ট   |   368 বার পঠিত

ভ্যাট ফাঁকির মামলার কবলে ডেল্টা লাইফ

৩৫ কোটি ১৭ লাখ টাকার ভ্যাট ফাঁকির অভিযোগে পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত বীমা খাতের প্রতিষ্ঠান ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্সের বিরুদ্ধে মামলা করেছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের (এনবিআর) ভ্যাট গোয়েন্দা অধিদপ্তর।
বৃহস্পতিবার (১১ ফেব্রুয়ারি) প্রতিষ্ঠানটির বিরুদ্ধে ভ্যাট আইনে মামলা করা হয়।

কোম্পানিটির বিরুদ্ধে ভ্যাট ফাঁকির সুনির্দিষ্ট অভিযোগ থাকায় ভ্যাট গোয়েন্দার সহকারী পরিচালক সায়মা পারভীনের নেতৃত্বে একটি দল ২০১৩ সালের জানুয়ারি থেকে ২০১৭ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত তদন্ত করে। এ সময় দলিলাদি দাখিলের জন্য প্রতিষ্ঠান কর্তৃপক্ষকে তলব করা হয়। প্রতিষ্ঠানের দাখিল করা তথ্য-উপাত্ত যাচাই করে প্রতিবেদন প্রস্তুত করা হয়।

প্রতিবেদনে বলা হয়, প্রতিষ্ঠানটি স্বাস্থ্য বীমার ওপর ৪০ লাখ ৫৫ হাজার ৭৩ টাকা ভ্যাট পরিশোধ করেছে। কিন্তু প্রতিষ্ঠানটির প্রদেয় ভ্যাটের পরিমাণ ছিল ১০ কোটি ২১ লাখ ৩৭ হাজার ৪১১ টাকা। প্রতিষ্ঠানটি প্রকৃত বিক্রয় তথ্য গোপন করেছে। সেই হিসাবে অপরিশোধিত ভ্যাট বাবদ ৯ কোটি ৮০ লাখ ৮২ হাজার ৩৩৯ টাকার ফাঁকি উদ্ঘাটন করা হয়েছে। এই ফাঁকির ওপর ভ্যাট আইন অনুসারে মাসভিত্তিক ২ শতাংশ হারে ১১ কোটি ৩০ লাখ ৪০ হাজার ৭৭৮ টাকা সুদ হিসাবে প্রযোজ্য হবে।

প্রতিষ্ঠানটির মোট অপরিশোধিত ভ্যাটের পরিমাণ ১৬ কোটি ২৪ লাখ ২৭ হাজার ৯০৫ টাকা। এর সঙ্গে ১৮ কোটি ৯২ লাখ ৬২ হাজার ৮২৮ টাকা সুদ বাবদ মোট ফাঁকির পরিমাণ ৩৫ কোটি ১৬ লাখ ৯০ হাজার ৭৩৩ টাকা।

প্রতিবেদনে আরও বলা হয়, ওই সময়ে সিএ ফার্মের রিপোর্ট মোতাবেক উৎসে ভ্যাট ৬ কোটি ৩৪ লাখ ৭ হাজার ৮০৩ টাকা পরিশোধ করেছে কোম্পানি। কিন্তু প্রতিষ্ঠানটির প্রদেয় ভ্যাটের পরিমাণ ছিল ১১ কোটি ৩ লাখ ১৩ হাজার ২৪৯ টাকা। এ ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানটির অপরিশোধিত ভ্যাট বাবদ ৪ কোটি ৬৯ লাখ ৫ হাজার ৪৪৬ টাকার ফাঁকি উৎঘাটিত হয়েছে।

উৎসে কর্তনের ওপর প্রযোজ্য এই ফাঁকি দেওয়া ভ্যাটের ওপর ভ্যাট আইন অনুসারে মাসভিত্তিক ২ শতাংশ হারে ৫ কোটি ৫৭ লাখ ৭৫ হাজার ১৬৯ টাকা সুদ আদায়যোগ্য হবে। অন্যদিকে তদন্ত মেয়াদে প্রতিষ্ঠানটি স্থান ও স্থাপনার ভাড়ার বিপরীতে ১ কোটি ৪৬ লাখ ১৪ হাজার ৯৮০ টাকা পরিশোধ করেছে। কিন্তু প্রতিষ্ঠানটির প্রদেয় ভ্যাটের পরিমাণ ছিল ৩ কোটি ২০ লাখ ৫৫ হাজার ১০১ টাকা। এ ক্ষেত্রে প্রতিষ্ঠানটির অপরিশোধিত ভ্যাট বাবদ ১ কোটি ৭ লাখ ৪০ হাজার ১২০ টাকার ফাঁকি উদ্ঘাটন করা হয়েছে। এই ফাঁকির ওপরও ভ্যাট আইন অনুসারে মাসভিত্তিক ২ শতাংশ হারে ২ কোটি ৪ লাখ ৪৬ হাজার ৮৮১ টাকা সুদ প্রযোজ্য হবে।

অর্থাৎ প্রতিষ্ঠানটির মোট অপরিশোধিত ভ্যাটের পরিমাণ ১৬ কোটি ২৪ লাখ ২৭ হাজার ৯০৫ টাকা। এর সঙ্গে ১৮ কোটি ৯২ লাখ ৬২ হাজার ৮২৮ টাকা সুদ বাবদ মোট ফাঁকির পরিমাণ ৩৫ কোটি ১৬ লাখ ৯০ হাজার ৭৩৩ টাকা।

তদন্তে আরও দেখা যায় যে প্রতিষ্ঠানটি ভ্যাট ফাঁকির উদ্দেশ্যে নানা ধরনের জালিয়াতি ও মিথ্যার আশ্রয় নিয়েছে, যা ভ্যাট আইন অনুসারে শাস্তিযোগ্য অপরাধ।

Facebook Comments Box
(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});

Posted ৬:৪৫ অপরাহ্ণ | শুক্রবার, ১২ ফেব্রুয়ারি ২০২১

bankbimaarthonity.com |

এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

আর্কাইভ ক্যালেন্ডার

শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
১০১১১২১৩১৪
১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
২৯৩০  
প্রধান সম্পাদক: মোহাম্মাদ মুনীরুজ্জামান
নিউজরুম:

মোবাইল: ০১৭১৫-০৭৬৫৯০, ০১৮৪২-০১২১৫১

ফোন: ০২-৮৩০০৭৭৩-৫, ই-মেইল: bankbima1@gmail.com

সম্পাদকীয় ও বাণিজ্যিক কার্যালয়: পিএইচপি টাওয়ার, ১০৭/২, কাকরাইল, ঢাকা-১০০০।