• মূলধনের তুলনায় আড়াই গুণ বেশি রিজার্ভ ১১৬ কোম্পানির

    নিজস্ব প্রতিবেদক | ০৪ মার্চ ২০২১ | ১১:২৪ পূর্বাহ্ণ

    মূলধনের তুলনায় আড়াই গুণ বেশি রিজার্ভ ১১৬ কোম্পানির
    apps

    পুঁজিবাজারে তালিকাভুক্ত ১১৬ কোম্পানির বর্তমান পরিশোধিত মূলধনের পরিমাণ ২১ হাজার ৪২০ কোটি ৪৪ লাখ টাকা। কোম্পানিগুলোর মোট রিজার্ভের পরিমাণ ৫৫ হাজার ৩২৩ কোটি ৩৯ লাখ টাকা। যা পরিশোধিত মূলধনের চেয়ে আড়াই গুণ বেশি। কোনো কোম্পানির পরিশোধিত মূলধনের দ্বিগুণ থেকে শুরু করে দেড়শো গুণ পর্যন্ত বেশি রয়েছে রিজার্ভের পরিমাণ। অথচ কোম্পানিগুলো বিনিয়োগকারীদের ডিভিডেন্ডের পরিমাণ বাড়িয়ে দিচ্ছে না। কিংবা বেশিরভাগ কোম্পানি রিজার্ভের অর্থ কোনো খাতে বিনিয়োগ না করে অলস ভাবে ফেলে রেখেছে।

    জানা গেছে, এবি ব্যাংকের পরিশোধিত মূলধনের পরিমাণ ৫৯৯ কোটি ২ লাখ টাকা। অন্যদিকে এর রিজার্ভের পরিমাণ ১ হাজার ২৭৬ কোটি ৮৯ লাখ টাকা। এসিআই কোম্পানির পরিশোধিত মূলধন ৩৯ কোটি ৮৪ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৩৩৯ কোটি ৪ লাখ টাকা।

    Progoti-Insurance-AAA.jpg

    এসিআই ফরমুলেশনের পরিশোধিত মূলধন ৪৫ কোটি টাকা এবং রিজার্ভ ৩৩৯ কোটি ৪ হাজার টাকা। আফতাব অটোর পরিশোধিত মূলধন ৯৫ কোটি ৭৩ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ২১৫ কোটি ৫৯ লাখ টাকা। এমসিএল প্রাণের পরিশোধিত মূলধন ৮ কোটি টাকা এবং রিজার্ভ ৩৬ কোটি ৭১ লাখ টাকা। এপেক্স ফুডের পরিশোধিত মূলধন ৫ কোটি ৭০ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৩৫ কোটি ৬৪ লাখ টাকা টাকা।

    এপেক্স ফুটওয়্যার লিমিটেডের পরিশোধিত মূলধন ১১ কোটি ২৫ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ২৪৫ কোটি ৬০ লাখ টাকা। এপেক্স স্পিনিংয়ের পরিশোধিত মূলধন ৮ কোটি ৪০ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৩২ কোটি ১২ লাখ টাকা। এপেক্স ট্যানারীর পরিশোধিত মূলধন ১৫ কোটি ২০ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৫৪ কোটি ২০ লাখ টাকা। অ্যারামিটের পরিশোধিত মূলধন ৬ কোটি টাকা এবং রিজার্ভ ৭৮ কোটি ১৯ লাখ টাকা।


    এটলাস বাংলাদেশের পরিশোধিত মূলধন ২৩ কোটি ৭০ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৪৫২ কোটি ৪২ লাখ টাকা। বঙ্গজের পরিশোধিত মূলধন ৫ কোটি ৫০ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৭ কোটি ১৭ লাখ টাকা। বাটা সু’র পরিশোধিত মূলধন ১৩ কোটি ৬৮ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ২৪৩ কোটি ৪২ লাখ টাকা। ব্যাটবিসির পরিশোধিত মূলধন ৬০ কোটি টাকা এবং রিজার্ভ ১ হাজার ৮৬ কোটি ৩৫ লাখ টাকা।

    বে-লিজিংয়ের পরিশোধিত মূলধন ১৩০ কোটি ৯১ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ১৩১ কোটি ১৯ লাখ টাকা। বাংলাদেশ ল্যাম্পসের পরিশোধিত মূলধন ৯ কোটি ৪০ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৫২ কোটি ৩১ লাখ টাকা। বিডি থাই এলমুনিয়ামের পরিশোধিত মূলধন ৫২ কোটি ৩৪ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ১৩৩ কোটি ৫ লাখ টাকা। বেঙ্গল ইউন্ডসোরের পরিশোধিত মূলধন ৭৫ কোটি ৬০ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৮১ কোটি ১২ লাখ টাকা।

    বার্জার পেইন্টস বাংলাদেশের পরিশোধিত মূলধন ২৩ কোটি ১৯ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৩২২ কোটি ৫১ লাখ টাকা। বেক্সিমকোর পরিশোধিত মূলধন ৬৯১ কোটি ১৭ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৪ হাজার ৪৫৪ কোটি ৪৯ লাখ টাকা। ব্র্যাক ব্যাংকের পরিশোধিত মূলধন ৭০৯ কোটি ২৯ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৭৩৯ কোটি ৩ লাখ টাকা। বাংলাদেশ শিপিং কর্পোশনের পরিশোধিত মূলধন ১৩৬ কোটি ২০ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ২৪২ কোটি ১৮ লাখ টাকা।

    বাংলাদেশ সাবমেরিন ক্যাবলসের পরিশোধিত মূলধন ১৬৪ কোটি ৯১ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ১৬৬ কোটি ১৩ লাখ টাকা। বিএসআরএম লিমিটেডের পরিশোধিত মূলধন ১৭৭ কোটি ৩৬ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৬৯১ কোটি ৪২ লাখ টাকা। বিএসআরএম স্টীলের পরিশোধিত মূলধন ৩৪১ কোটি ৭৮ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৫২৪ কোটি ৪৪ লাখ টাকা। বেক্সিমকো ফার্মার পরিশোধিত মূলধন ৩৮৬ কোটি ২৪ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ১ হাজার ১৭৮ কোটি ৮৩ লাখ টাকা।

    সিটি ব্যাংকের পরিশোধিত মূলধন ৮৭৫ কোটি ৮০ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ১ হাজার ২৪৬ কোটি ৬৯ লাখ টাকা। কনফিডেন্স সিমেন্টের পরিশোধিত মূলধন ৪৫ কোটি টাকা এবং রিজার্ভ ১৭৯ কোটি ২ লাখ টাকা। ঢাকা ডাইংয়ের পরিশোধিত মূলধন ৭৯ কোটি ২৩ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ১১২ কোটি ১৯ লাখ টাকা। ডেল্টা ব্র্যাক হাউজিংয়ের পরিশোধিত মূলধন ১১৬ কোটি টাকা এবং রিজার্ভ ১৯৫ কোটি ৫৪ লাখ টাকা।

    ডেসকোর পরিশোধিত মূলধন ৩৭৮ কোটি ৬৪ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৭৪৩ কোটি ৪৯ লাখ টাকা। ঢাকা ব্যাংকের পরিশোধিত মূলধন ৬২৫ কোটি ৩৬ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৬৭১ কোটি ৯৪ লাখ টাকা। ডাচ বাংলা ব্যাংকের পরিশোধিত মূলধন ২০০ কোটি টাকা এবং রিজার্ভ ১ হাজার ১৭ কোটি ৬৪ লাখ টাকা। ইষ্টার্ন ইন্স্যুরেন্সের পরিশোধিত মূলধন ৪৩ কোটি ১০ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৭৩ কোটি ২৬ লাখ টাকা টাকা।

    ইস্টার্ন লুব্রিকেন্টসের পরিশোধিত মূলধন ১ কোটি টাকা এবং রিজার্ভ ৬ কোটি ২৭ লাখ টাকা। ইষ্টার্ন ব্যাংকের পরিশোধিত মূলধন ৬১১ কোটি ১৮ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ১ হাজার ৪১২ কোটি ২৮ লাখ টাকা। ইষ্টার্ন ক্যাবলসের পরিশোধিত মূলধন ২৪ কোটি টাকা এবং রিজার্ভ ৪২ কোটি ৯৯ লাখ টাকা। এনভয় টেক্সটাইলের পরিশোধিত মূলধন ১৪৪ কোটি ৮১ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ২৮৩ কোটি ৪৪ লাখ টাকা।

    গ্লোবাল হেভি কেমিক্যালের পরিশোধিত মূলধন ৭২ কোটি টাকা এবং রিজার্ভ ১৯২ কোটি ৭৫ লাখ টাকা। গ্লাক্সো স্মিথের পরিশোধিত মূলধন ১২ কোটি ৫ হাজার টাকা এবং রিজার্ভ ২১৯ কোটি ৬০ লাখ টাকা। জি কিউ বলপেনের পরিশোধিত মূলধন ৮ কোটি ৯৩ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ১৪৯ কোটি ১০ লাখ টাকা। গ্রিণ ডেল্টা ইন্স্যুরেন্সের পরিশোধিত মূলধন ৮০ কোটি ৬৯ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৪৫৫ কোটি ৭২ লাখ টাকা।

    হাইডেল বার্গ সিমেন্টের পরিশোধিত মূলধন ৫৬ কোটি ৫০ হাজার টাকা এবং রিজার্ভ ৬৯৫ কোটি ৯০ লাখ টাকা। হামিদ ফেব্রিক্স লিমিটেডের পরিশোধিত মূলধন ৮৬ কোটি ৭২ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ১৪৯ কোটি ৩৯ লাখ টাকা। হা-ওয়েল টেক্সটাইলের পরিশোধিত মূলধন ৫৬ কোটি টাকা এবং রিজার্ভ ৮২ কোটি ১৭ লাখ টাকা।

    দ্য ইবনে সিনার পরিশোধিত মূলধন ২২ কোটি ৪৫ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৪৫ কোটি ৪৮ লাখ টাকা। আইসিবির পরিশোধিত মূলধন ৬৩২ কোটি ৮১ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ২ হাজার ৬৬১ কোটি ৩ লাখ টাকা। আইডিএসসি ফিন্যান্সের পরিশোধিত মূলধন ২৫১ কোটি ৩৭ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৪০১ কোটি ৪ লাখ টাকা। আইএফআইসি ব্যাংকের পরিশোধিত মূলধন ৫০৩ কোটি ৪১ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৬৮৬ কোটি ২৯ লাখ টাকা।

    ইসলামি ব্যাংকের পরিশোধিত মূলধন ১ হাজার ৬১০ কোটি টাকা এবং রিজার্ভ ৩ হাজার ৪৮ কোটি ৪৬ লাখ টাকা। যমুনা ওয়েল কোম্পানির পরিশোধিত মূলধন ১১০ কোটি ৪২ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ১ হাজার ৭৯ কোটি ৪০ লাখ টাকা। জেএমআই সিরিঞ্জের পরিশোধিত মূলধন ১১ কোটি টাকা এবং রিজার্ভ ৪২ কোটি ৭৫ লাখ টাকা।

    কেপিসিএলের পরিশোধিত মূলধন ৩৬১ কোটি ২৯ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৪৬২ কোটি ৭৫ লাখ টাকা। লঙ্কাবাংলা ফিন্যান্সের পরিশোধিত মূলধন ২৪০ কোটি ৬৪ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৩৪৪ কোটি ৯৪ লাখ টাকা। লিবরা ইনফিউশনের পরিশোধিত মূলধন ১ কোটি ২৫ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ১৯৫ কোটি ৪৪ লাখ টাকা।

    লিনডে বাংলাদেশের ইনফিউশনের পরিশোধিত মূলধন ১৫ কোটি ২২ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ২৪৫ কোটি ৪৯ লাখ টাকা। মালেক স্পিনিংয়ের পরিশোধিত মূলধন ১৯৩ কোটি ৬০ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৫২৮ কোটি ৭৩ লাখ টাকা। মেরিকো বাংলাদেশের পরিশোধিত মূলধন ৩১ কোটি ৫০ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ১১৪ কোটি ৫২ লাখ টাকা। মতিন স্পিনিংয়ের পরিশোধিত মূলধন ৯৭ কোটি ৫০ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ২১৪ কোটি ৩২ লাখ টাকা। মেঘনা সিমেন্টের পরিশোধিত মূলধন ২২ কোটি ৫০ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৫৮ কোটি ৭২ লাখ টাকা।

    মুন্নু স্টাফলার্সের পরিশোধিত মূলধন ৪০ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ১ কোটি ৫৮ লাখ টাকা। মেঘনা পেট্রোলিয়ামের পরিশোধিত মূলধন ১০৮ কোটি ২২ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৫৮৮ কোটি ১০ লাখ টাকা। নাভানা সিএনজির পরিশোধিত মূলধন ৬৮ কোটি ৫২ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ১৩৮ কোটি ৩৭ লাখ টাকা। ন্যাশনাল পলিমারের পরিশোধিত মূলধন ১৪ কোটি ৪৩ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ১৬ কোটি ১৬ লাখ টাকা।

    ন্যাশনাল টির পরিশোধিত মূলধন ৬ কোটি ৬০ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৭৬ কোটি ৬৯ লাখ টাকা। ন্যাশনাল ইন্স্যুরেন্সের পরিশোধিত মূলধন ২৭ কোটি ৮৭ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৩১ কোটি ৬২ লাখ টাকা। নর্দার্ণ জুটের পরিশোধিত মূলধন ১ কোটি ৭৯ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ১৩ কোটি ৭৮ লাখ টাকা। ন্যাশনাল টিউবসের পরিশোধিত মূলধন ১৯ কোটি ৮২ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৫৪৯ কোটি ৩২ লাখ টাকা।

    ওরিয়ন ফার্মার পরিশোধিত মূলধন ২৩৪ কোটি টাকা এবং রিজার্ভ ৫৪৩ কোটি ৯০ লাখ টাকা। পদ্মা ওয়েলের পরিশোধিত মূলধন ৯৮ কোটি ২৩ হাজার টাকা এবং রিজার্ভ ৬৩০ কোটি ৮৭ লাখ টাকা। দ্য পেনিনসুলা চিটাগাংয়ের পরিশোধিত মূলধন ১১৮ কোটি ৬৭ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ১৪৭ কোটি ৪৪ লাখ টাকা। ফার্মা এইডের পরিশোধিত মূলধন ৩ কোটি ১২ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৬ কোটি ৭৯ লাখ টাকা।

    ফনিক্স ইন্স্যুরেন্সের পরিশোধিত মূলধন ৪০ কোটি ৩৪ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৯১ কোটি ২০ লাখ টাকা। পাওয়ার গ্রিডের পরিশোধিত মূলধন ৪৬০ কোটি ৯১ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৪৬১ কোটি ৯৬ লাখ টাকা। প্রগতি ইন্স্যুরেন্সের পরিশোধিত মূলধন ৫৫ কোটি ৬০ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ২২৪ কোটি ২৬ লাখ টাকা। প্রিমিয়ার সিমেন্টের পরিশোধিত মূলধন ১০৫ কোটি ৪৫ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ১৬০ কোটি ৯৬ লাখ টাকা।

    প্রাইম ব্যাংকের পরিশোধিত মূলধন ১ হাজার ২৯ কোটি ৩৫ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ১ হাজার ২০৪ কোটি ৬৯ লাখ টাকা। প্রাইম টেক্সটাইল পরিশোধিত মূলধন ৩৮ কোটি ২০ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ১৩৫ কোটি ৯৮ লাখ টাকা। পূবালী ব্যাংকের পরিশোধিত মূলধন ৮৮০ কোটি ৩৭ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ১ হাজার ৩৩২ কোটি ৭০ লাখ টাকা। কাশেম ড্রাইসেলসের পরিশোধিত মূলধন ৪০ কোটি ৪৮ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ১২৩ কোটি ৭৪ লাখ টাকা।

    রহিম টেক্সটাইলের পরিশোধিত মূলধন ৩ কোটি ৪৭ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ১৪ কোটি ৪৫ লাখ টাকা। রেকিট বেনকিজারের পরিশোধিত মূলধন ৪ কোটি ৭৩ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ১৬ কোটি ৪২ লাখ টাকা। রিলায়েন্স ইন্স্যুরেন্সের পরিশোধিত মূলধন ৫৮ কোটি ৭০ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৩২২ কোটি ৪৪ লাখ টাকা। রেনেটা লিমিটেডের পরিশোধিত মূলধন ৫২ কোটি ৯৫ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৭৪৫ কোটি ৯২ লাখ টাকা। আরএসআরএম স্টিলের পরিশোধিত মূলধন ৬৫ কোটি ৫২ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ১৩৩ কোটি ৯১ লাখ টাকা।

    রূপালী ব্যাংকের পরিশোধিত মূলধন ২৪০ কোটি টাকা এবং রিজার্ভ ৯৭০ কোটি ২০ লাখ টাকা। রুপালী ইন্স্যুরেন্সের পরিশোধিত মূলধন ৬০ কোটি ২১ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৬৫ কোটি ৩৫ লাখ টাকা। সায়হাম টেক্সটাইলের পরিশোধিত মূলধন ৭৫ কোটি টাকা এবং রিজার্ভ ৯৬ কোটি ২১ লাখ টাকা। শমরিতা হাসপাতালের পরিশোধিত মূলধন ১৪ কোটি ৮৬ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৬৬ কোটি ৭৭ লাখ টাকা। সামিট অ্যালায়েন্স পোর্টের পরিশোধিত মূলধন ১৭১ কোটি ৭৬ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৫১৯ কোটি ৯৭ লাখ টাকা।

    শাশা ডেনিমসের পরিশোধিত মূলধন ১১২ কোটি ৭৯ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ২২২ কোটি ৩৮ লাখ টাকা। সোনালী আঁশের পরিশোধিত মূলধন ২ কোটি ৭০ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৫৮ লাখ ৪৭ লাখ টাকা। সাউথইস্ট ব্যাংকের পরিশোধিত মূলধন ৯১৬ কোটি ৯৫ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ১ হাজার ৫৩৭ কোটি ৩৭ লাখ টাকা। শাইনপুকুর সিরামিকসের পরিশোধিত মূলধন ১৫১ কোটি ৯৮ টাকা এবং রিজার্ভ ২১১ কোটি ৬৫ লাখ টাকা। স্কয়ার টেক্সটাইশের পরিশোধিত মূলধন ১৬২ কোটি ৬৫ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৪৮৬ কোটি ৭৮ লাখ টাকা।

    স্কয়ার ফার্মাসিউটিক্যালসের পরিশোধিত মূলধন ৬২৩ কোটি ৫৯ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ২ হাজার ২৮২ কোটি ২০ লাখ টাকা। স্টাইল ক্রাফটের পরিশোধিত মূলধন ৬০ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ১৯ কোটি ৫৯ লাখ টাকা। তিতাস গ্যাসের পরিশোধিত মূলধন ৯৮৯ কোটি ২০ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৪ হাজার ২৬২ কোটি ৫৪ লাখ টাকা। ইউসিবিএলের পরিশোধিত মূলধন ১ হাজার ৩ কোটি ৯৩ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ১ হাজার ১০৩ কোটি ২৪ লাখ টাকা। ইউনিক হোটেলের পরিশোধিত মূলধন ২৯৪ কোটি ৪০ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ১ হাজার ৬৭০ কোটি ৪৯ লাখ টাকা।

    ইউনাইটেড ইন্স্যুরেন্সের পরিশোধিত মূলধন ৪০ কোটি টাকা এবং রিজার্ভ ৬৩ কোটি ৩ লাখ টাকা। উসমানিয়া গ্লাসের পরিশোধিত মূলধন ১১ কোটি ৮৯ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ২১ কোটি ১১ লাখ টাকা। উত্তরা ব্যাংকের পরিশোধিত মূলধন ৪০০ কোটি ৪ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৮২১ কোটি ৫৭ লাখ টাকা। উত্তরা ফিন্যান্সের পরিশোধিত মূলধন ১২৫ কোটি ২২ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৩১৩ কোটি ৮৩ লাখ টাকা। ওয়াটা কেমিক্যালের পরিশোধিত মূলধন ৭ কোটি ৯০ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৫০ কোটি ৩৫ লাখ টাকা।

    ওয়েস্টার্ন মেরিন শিপিয়ার্ডের পরিশোধিত মূলধন ১২০ কোটি ৫১ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ১৭৫ কোটি ৪০ লাখ টাকা। জাহিন টেক্সটাইলের পরিশোধিত মূলধন ৬২ কোটি ৬২ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৮৮ কোটি ৭২ লাখ টাকা।
    হাক্কানী পাল্পের পরিশোধিত মূলধন ১৯ কোটি টাকা এবং রিজার্ভ ৩৮ কোটি ৪৪ লাখ টাকা। মুন্নু সিরামিকের পরিশোধিত মূলধন ২৩ কোটি ৯৩ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ২০৩ কোটি ৮৫ লাখ টাকা। আমান ফিডের পরিশোধিত মূলধন ৯৬ কোটি টাকা এবং রিজার্ভ ১৩৯ কোটি ১৮ লাখ টাকা।

    বেক্সিমকো সিনথেটিক্সর পরিশোধিত মূলধন ৮৬ কোটি ৭০ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ১২৭ কোটি ৬৬ লাখ টাকা। সোনারগাঁও টেক্সটাইলের পরিশোধিত মূলধন ২৬ কোটি ৫০ লাখ টাকা এবং রিজার্ভ ৫১ কোটি ৫২ লাখ টাকা। সর্বশেষ শাইনপুকুর সিরামিকস লিমিটেডের পরিশোধিত মূলধনের পরিমাণ ১৪৭ কোটি টাকা। অন্যদিকে এ কোম্পানির রিজার্ভের পরিমাণ ২৭৯ কোটি ৪৯ লাখ টাকা।

    বাজার সংশ্লিষ্টদের মতে, পর্যাপ্ত রিজার্ভ থাকাটা যে কোনো কোম্পানির জন্য ইতিবাচক। মূলধনের তুলনায় রিজার্ভ বেশি থাকাটা আরো বেশি ইতিবাচক। প্রত্যেক কোম্পানির ঝুঁকি মোকাবেলার জন্য রিজার্ভ টাকা বা সম্পদ থাকা একান্ত দরকার। তবে পরিশোধিত মূলধনের চেয়ে বেশি রিজার্ভ ফান্ডে রাখার কোনো দরকার নেই। কোম্পানিগুলো ইচ্ছে করলে রিজার্ভের টাকায় ভালো কোনো খাতে বিনিয়োগ করে এর থেকে মুনাফা অর্জন করতে পারে। পাশাপাশি ওই মুনাফা থেকে বিনিয়োগকারীদেরকে সন্তোষজনক হারে লভ্যাংশ দিতে পারে। তাহলে বিনিয়োগকারীরাও সংশ্লিষ্ট কোম্পানিতে বিনিয়োগ বাড়াবে, যার ইতিবাচক প্রভাব পরবে পুঁজিবাজারে। এ ব্যাপারে নিয়ন্ত্রক সংস্থাকে ইতিবাচক পদক্ষেপ নিতে হবে। তাহলে বাজারে স্থিতিশীলতা ফিরে আসবে।

    Facebook Comments Box

    বাংলাদেশ সময়: ১১:২৪ পূর্বাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, ০৪ মার্চ ২০২১

    bankbimaarthonity.com |

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    Archive Calendar

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১১২১৩
    ১৪১৫১৬১৭১৮১৯২০
    ২১২২২৩২৪২৫২৬২৭
    ২৮২৯৩০৩১  
  • ফেসবুকে ব্যাংক বীমা অর্থনীতি