• আন্তর্জাতিক বাজারে অস্থিরতায় উদ্বেগে পাট সুতা উৎপাদকরা

    বিবিএনিউজ.নেট | ৩০ মার্চ ২০১৯ | ১:১৯ অপরাহ্ণ

    আন্তর্জাতিক বাজারে অস্থিরতায় উদ্বেগে পাট সুতা উৎপাদকরা
    apps

    পাট সুতার আন্তর্জাতিক বাজারে চলছে অস্থিরতা। এ পরিস্থিতিতে পাট খাতের জন্য বাংলাদেশ ব্যাংকের নিজস্ব তহবিল দিয়ে গঠিত ২০০ কোটি টাকার পুনঃঅর্থায়ন স্কিমের মেয়াদ পাঁচ বছর এবং পরিমাণ ৫০০ কোটি টাকায় উন্নীত করতে সরকারের কাছে আহ্বান জানিয়েছে বাংলাদেশ জুট স্পিনার্স অ্যাসোসিয়েশন (বিজেএসএ)। শুক্রবার সংগঠনের বার্ষিক সাধারণ সভায় পুনঃঅর্থায়ন স্কিমের মেয়াদ ও পরিমাণসহ মোট চারটি দাবি জানানো হয়।

    বিজেএসএর ৪০তম বার্ষিক সাধারণ সভা সংগঠনের সভাকক্ষে শুক্রবার অনুষ্ঠিত হয়। এতে সভাপতিত্ব করেন বিজেএসএ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাহ্জাহান। সভায় উপস্থিত ছিলেন বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী গোলাম দস্তগীর গাজী বীর প্রতীক।

    Progoti-Insurance-AAA.jpg

    বার্ষিক সাধারণ সভায় বলা হয়, পাট সুতার আন্তর্জাতিক বাজার বেশ মন্দা এবং সংকটের মধ্য দিয়ে অতিবাহিত হচ্ছে। এ পরিস্থিতি উত্তরণে সব সদস্য প্রতিষ্ঠানকে ধৈর্যের সঙ্গে মোকাবেলা করতে হবে। পণ্যের যথাযথ উৎপাদন ব্যয় নির্ধারণে বিশেষ মনোযোগী হতে হবে।

    বিজেএসএ চেয়ারম্যান মোহাম্মদ শাহ্জাহান বলেন, বর্তমানে পাট সুতার প্রধানতম বাজার তুরস্ক গভীর অর্থনৈতিক ও রাজনৈতিক সংকটের মধ্য দিয়ে যাচ্ছে। তুরস্কের মুদ্রা মার্কিন ডলারের বিপরীতে গত এক বছরে প্রায় ৪০ শতাংশ অবমূল্যায়ন হওয়ার কারণে আমদানি বাণিজ্যে নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে। উন্নত বিশ্বের সংকোচনমূলক আর্থিক নীতি, ডলারসহ বিভিন্ন মুদ্রামানে অস্থিরতা সামনের দিনগুলোয় বাণিজ্যের গতিকে শ্লথ করে দেবে। ভূরাজনৈতিক উত্তেজনা বৃদ্ধির কারণেও সরবরাহ ব্যবস্থা বাধাগ্রস্ত হতে পারে। এছাড়া চীন-মার্কিন পাল্টাপাল্টি শুল্কারোপের পর নীতিনির্ধারকরা বিশ্ববাণিজ্য নিয়ে নতুনভাবে চিন্তাভাবনা করছেন এবং এসব কারণে পাটপণ্য রফতানি বাণিজ্যে প্রচণ্ডভাবে নেতিবাচক প্রভাব পড়েছে।


    মোহাম্মদ শাহ্জাহান আরো বলেন, তুরস্কের পর চীনের পাট সুতার বাজারও নানা কারণে কোণঠাসা। চীনে সাধারণত নিম্নমানের পাট সুতা রফতানি হয়। নানা কারণে চীনের অর্থনীতিতেও বিরূপ প্রভাব পরিলক্ষিত হচ্ছে। এরপর ভারত বাংলাদেশ থেকে পাটপণ্যের আমদানির বিপরীতে অ্যান্টি-ডাম্পিং ডিউটি আরোপের কারণে এ বাজারও সংকুচিত হয়ে আসছে। বর্তমানে ইরানের অর্থনীতি যুক্তরাষ্ট্র কর্তৃক বাণিজ্যে অবরোধ আরোপের কারণে নাজুক। দেশটির আর্থিক লেনদেন ব্যবস্থা প্রায় ভেঙে পড়েছে। এ কারণে ইরানে পাট সুতা রফতানি ক্রমান্বয়ে হ্রাস পাচ্ছে।

    উদ্ভূত পরিস্থিতির প্রেক্ষাপটে পাট শিল্পের উন্নয়নে সরকারের কাছে এরই মধ্যে পাঠানো সুপারিশগুলো বাস্তবায়নের আহ্বান জানিয়েছে সংগঠনটি। সুপারিশগুলোর মধ্যে আছে পাট খাতের জন্য ২০০ কোটি টাকার পুনঃঅর্থায়ন স্কিমের মেয়াদ পাঁচ বছর এবং পরিমাণ ৫০০ কোটি টাকা বৃদ্ধি করা।

    সুপারিশের মধ্যে আরো বলা হয়, পাটকলের সার্বিক অবস্থা বিবেচনায় এনে আগের মতো জুট ব্যাচিং অয়েলের (জেবিও) মূল্য পুনর্নির্ধারণের বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ। কারণ জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ বিভাগ জেবিওর দাম ৩০ দশমিক ৩৫ শতাংশ বাড়িয়েছে। এ কারণে রুগ্ণ পাট শিল্পকে বছরে প্রায় ৭৬ কোটি টাকা বেশি ব্যয় করতে হবে।

    পণ্যে পাটজাত মোড়কের বাধ্যতামূলক ব্যবহার আইন, ২০১০ যথাযথভাবে বাস্তবায়নের বিষয়েও বলা হয়েছে সুপারিশে। সেখানে বলা হয়, আইনের আওতায় মোট ১৯টি পণ্যের মোড়কীকরণে অবশ্যই পাটের বস্তা ব্যবহারের সিদ্ধান্ত গৃহীত হয়েছে। বিষয়টি বাস্তবায়নের নিমিত্তে দেশের সব পর্যায়ে নিয়মিতভাবে মোবাইল কোর্ট পরিচালনার ব্যবস্থা জোরদার করা প্রয়োজন।

    সর্বশেষ সুপারিশে বলা হয়, সম্প্রতি সরকার ‘পাটপণ্য ব্যতীত’ তৈরি পোশাকসহ অন্যান্য রফতানি পণ্যের উৎসে আয়কর শূন্য দশমিক ৬ থেকে কমিয়ে শূন্য দশমিক ২৫ শতাংশ নির্ধারণ করে একটি আদেশ জারি করেছে। এই আদেশে পাটপণ্যকে বাদ দেয়া হয়েছে। পাটকলগুলোর রফতানি আয় হ্রাসের কারণে তারল্য সংকট প্রকট হয়ে উঠেছে।

    Facebook Comments Box

    বাংলাদেশ সময়: ১:১৯ অপরাহ্ণ | শনিবার, ৩০ মার্চ ২০১৯

    bankbimaarthonity.com |

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    রডের দাম বাড়ছে

    ১৩ জানুয়ারি ২০১৯

    Archive Calendar

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
    ১০১১১২১৩১৪
    ১৫১৬১৭১৮১৯২০২১
    ২২২৩২৪২৫২৬২৭২৮
    ২৯৩০৩১  
  • ফেসবুকে ব্যাংক বীমা অর্থনীতি