• শিরোনাম

    পুঁজিবাজার থেকে অনিয়ম ও কারসাজি দূর করতে তথ্য-প্রযুক্তি বিভাগে সংস্কার জরুরি

    নিজস্ব প্রতিবেদক | ১২ সেপ্টেম্বর ২০২০ | ৪:৫০ অপরাহ্ণ

    পুঁজিবাজার থেকে অনিয়ম ও কারসাজি দূর করতে তথ্য-প্রযুক্তি বিভাগে সংস্কার জরুরি

    বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনের (বিএসইসি) চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. শিবলী রুবাইয়াত-উল-ইসলাম বলেন, পুঁজিবাজার থেকে অনিয়ম এবং বিভিন্ন কারসাজি দূর করতে ডিএসই’র তথ্য-প্রযুক্তি বিভাগে সংস্কার জরুরি। ডিএসইর ওয়েবসাইট নিয়ে যে জটিলতা সৃষ্টি হয়েছিলো তার জন্য গঠিত তদন্ত কমিটি রিপোর্ট চূড়ান্ত করেছে। শিগগিরই তারাআমাদের কাছে এই রিপোর্ট জমা দেবেন। রিপোর্ট অনুযায়ী আমরা ব্যবস্থা নিতে বলবো।
    আজ শনিবার শেয়ারবাজার সাংবাদিকদের সংগঠন ক্যাপিটাল মার্কেট জার্নালিষ্টস ফোরাম (সিএমজেএফ) ও বাংলাদেশ মার্চেন্টস ব্যাংকার্স এসোসিয়েশন (বিএমবিএ) আয়োজিত বাজারের বর্তমান অবস্থা ও আগামী দিনের জন্য করনীয় শীর্ষক সেমিনারে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

    তিনি বলেন, বাংলাদেশের শেয়ারবাজার বর্তমানে অনেক উন্নয়নের সাথে এগিয়ে যাচ্ছে। এবং বাজারে অনেক পুনর্গঠন করা হচ্ছে। এরই মধ্যে কিছু দুষ্ট লোক আছে যারা দুর্নীতি করে আইনের ফাঁকফোকর ব্যবহার করে বেরিয়ে যাওয়ার সুযোগ পায়। তারা যেন আর কখনো দুর্নীতি করে আইনের ফাঁকফোকর ব্যবহার করে বেরিয়ে যেতে না পারে সেই ধরনের ব্যবস্থা করা হচ্ছে।

    Progoti-Insurance-AAA.jpg

    চেয়ারম্যান বলেন, পুঁজিবাজারের টাকা নিয়ে পালানোর সময় শেষ। পুঁজিবাজারের ব্যবসা সহজ করার জন্য যে ধরনের পদক্ষেপ নেয়া দরকার বিএসইসির পক্ষ থেকে সরকারের সাথে সমন্বয় করে সে ধরনের পদক্ষেপ নেবে কমিশন।

    বিএসইসি চেয়ারম্যান বলেন, আমরা ইক্যুইটি ভিত্তিক শেয়ারবাজার থেকে বের হওয়ার চেষ্টা করছি। গত সাড়ে ৩ মাসে প্রায় ৩ হাজার কোটি টাকার সাবঅর্ডিনেটে এবং পারপিচুয়াল বন্ড এবং ৮৫০ কোটি টাকার জিরো কূপন বন্ডের অনুমোদন দিয়েছি। এতে করে বাজারের সব কিছু বৃদ্ধি পাবে।


    শেয়ারবাজারের উন্নয়নে বিএসইসি একা কিছু করতে পারবে না বলে জানান তিনি। এখানে একটি টিম হয়ে সবাইকে কাজ করতে হবে। এরমধ্যে দু-একজন করবে না, কিন্তু তাতে করে লক্ষ্যচ্যুত হয় না।

    শেয়ারবাজারে বৈচিত্র আনতে হবে। সারাক্ষন শুধু সেকেন্ডারি মার্কেট না থাকলে হবে না। আমাদেরকে এই মার্কেটটাকে অনেক বড় করতে হবে। দৈনিক ১ হাজার কোটি টাকার লেনদেন কোন লেনদেন না। এই লেনদেনকে দ্রুত ৩-৫ হাজার কোটিতে নেওয়ার জন্য কাজ করতে হবে বলে তিনি জানান।

    বিএসইসির চেয়ারম্যান বলেন, আমরা যদি শতভাগ সুশাসন নিশ্চিত করতে না পারি, তাহলে কেনো একজন আমাদের কথায় শেয়ারবাজারে বিনিয়োগ করার ঝুকিঁ নেবে। কেনো তারা তাদের কষ্টার্জিত অর্থ শেয়ারবাজারে নিয়ে আসবে। যদি আমরা তাদের অর্থের নিরাপত্তা দিতে না পারি, রিটার্ন দিতে না পারি, তাহলে কেনো তারা আমাদের কথায় আসবে। সুতরাং আমরা যদি কাউকে আস্থায় নিয়ে আসতে পারি, তাহলে তারা বিনিয়োগে আসবে।

    স্বতন্ত্র পরিচালকদের নিয়ে আগামিতে কিছু কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে হবে বলে জানান তিনি। আইনে কাভার করলে কিছু স্বতন্ত্র পরিচালককে সরিয়ে দিতে হতে পারে। তাদের জায়গায় সঠিক স্বতন্ত্র পরিচালক নিয়োগ দেওয়া হবে। এই স্বতন্ত্র পরিচালকদেরকে যে উদ্দেশ্যে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে, সেটা এখনো পূরন হয়নি। আমরা এই সপ্তাহে স্বতন্ত্র পরিচালকদের অনলাইনে আবেদন নেওয়া শুরু করব। যারা যোগ্য হবেন, তাদেরকে নেওয়া হবে।

    শিবলী রুবাইয়াত বলেন, বিনিয়োগকারীদের থেকে টাকা নেওয়ার পরে যেসব কোম্পানির কার্যক্রম ঠিকভাবে চলছে না, যারা হঠাৎ করে বন্ধ করে চলে গেছেন, যাদের অফিস তালা মারা, যারা বিভিন্নভাবে বিনিয়োগকারীদের ঠকানোর চেষ্টা করেছেন, সেসব কোম্পানির পর্ষদ আমাদের ভেঙ্গে দিতে হতে পারে। সেখানে স্বতন্ত্র পরিচালকদের সংখ্যা বাড়িয়ে স্বচ্ছতা আনতে হবে। নতুন করে কাউকে আর এই সুযোগ দিতে চাই না।

    তিনি বলেন, কাউকে জরিমানা করতে আমাদের ভালো লাগে না। তারপরেও করতে হয়। এর মাধ্যমে আমরা বাজারে একটা ম্যাসেজ দিতে চাই যে, ভবিষ্যতে অন্যায় করে কেউ ছাড় পাবে না।

     

    Facebook Comments

    বাংলাদেশ সময়: ৪:৫০ অপরাহ্ণ | শনিবার, ১২ সেপ্টেম্বর ২০২০

    bankbimaarthonity.com |

    এ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

    আর্কাইভ

    শনি রবি সোম মঙ্গল বুধ বৃহ শুক্র
     
    ১০১১
    ১২১৩১৪১৫১৬১৭১৮
    ১৯২০২১২২২৩২৪২৫
    ২৬২৭২৮২৯৩০  
  • ফেসবুকে ব্যাংক বীমা অর্থনীতি